kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

সহায়ক খাবারদাবার

৬ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সহায়ক খাবারদাবার

দেহের অত্যাবশ্যকীয় অঙ্গ কিডনিকে সুস্থ ও কার্যকর রাখতে কিছু খাবার বেশ ভূমিকা রাখে। এমন কিছু খাবারের ব্যাপারে পরামর্শ দিচ্ছেন ডায়েট প্লানেট বাংলাদেশের পুষ্টিবিদ মাহবুবা চৌধুরী

 

শাক-সবজি

কিডনি ভালো রাখতে লাউ, ঝিঙা, পটোল, ঢেঁড়স, ধুন্দল, চিচিঙা, মিষ্টিকুমড়া, অঙ্কুুরিত মুগডাল, ক্যাপসিকাম ইত্যাদির বেশ ভূমিকা রয়েছে। এসব খাবারে থাকা প্রচুর পরিমাণ খাদ্য আঁশ, ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং পর্যাপ্ত জলীয় উপাদান কিডনি পরিশোধন করে দেহ থেকে দূষিত পদার্থ বের করতে বেশ সাহায্য করে।

 

আপেল

আপেলে পলিফিনল নামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে, যা কিডনির স্বাভাবিক কার্যক্রম বজায় রাখতে সাহায্য করে। যাদের কিডনিতে পাথরজনিত সমস্যা রয়েছে তারা নিয়মিত আপেল খেলে সেই পাথর নরম ও ছোট হয়ে শরীর থেকে বের হয়ে যায়।

 

মাছ

মাছকে বলা হয়ে থাকে নিরাপদ প্রোটিনের উৎস। দৈনিক প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে মাংসের চেয়ে মাছের ভূমিকা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

অন্যান্য পুষ্টি উপাদানের পাশাপাশি মাছে রয়েছে ওমেগা৩, যা কিডনি, হার্ট ও লিভারের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে। এ ছাড়া কোলেস্টেরল কমাতে এর ভূমিকা রয়েছে।

 

বাঁধাকপি

বাঁধাকপিকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের খনি বললেও ভুল হবে না। এতে রয়েছে ভিটামিন ‘কে’, ‘সি’, ‘বি৬’, ফলিক এসিড, প্রচুর ফাইবার, যা দেহের ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিক্যালের বিরুদ্ধে কাজ করে কিডনিকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি ক্যান্সার ও হৃদরোগ প্রতিরোধেও কাজ করে।

 

রসুন

রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা মানবদেহের প্রদাহ দূর করে। জারণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মানবদেহে অতিমাত্রায় বর্জ্য পদার্থ তৈরিতে বাধা দান করে কিডনি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

 

পেঁয়াজ

পেঁয়াজে থাকা কোরসিটিন নামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট কিডনির জন্য ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিক্যালগুলোকে বাধা দান করে, কিডনি পরিশোধনে সহায়তা করে এবং মূত্রনালির সংক্রমণ রোধ করে।

 

আদা

দেহের রক্ত চলাচল বাড়িয়ে কিডনিকে সচল রাখতে সাহায্য করে আদা। ফলে কিডনির কার্যকারিতা বেড়ে যায়। নিয়মিত আদা চা পান করলে অথবা কাঁচা আদা খেলে কিডনি সুস্থ থাকে।

 

চালতা

চালতায় থাকা প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও খনিজ লবণ কিডনি ভালো রাখতে সহায়তা করে। শরীর থেকে দূষিত বর্জ্য বের করে কিডনি পরিষ্কার করার ক্ষমতা থাকায় চালতাকে প্রাকৃতিক ক্লিনজার বলা হয়।

 

ডিমের সাদা অংশ

অনেকেই ডিমকে খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দেয়। কিন্তু ডিমের সাদা অংশই হচ্ছে বিশুদ্ধ প্রোটিন, যা কিডনি ভালো থাকার জন্য খুব প্রয়োজন।

মন্তব্য