kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

দেশে এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্ট ভালভ প্রতিস্থাপন

অধ্যাপক ডা. মীর জামাল উদ্দিন, পরিচালক, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দেশে এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্ট ভালভ প্রতিস্থাপন

গত ২৫ মে হাসিনা বেগম নামে ৩০ বছর বয়সী এক নারীর দেহে দেশে প্রথমবারের মতো ২-৩ ইঞ্চি ফুটো করে এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্টে ডাবল ভালভ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের উদ্যোগে করা এই সফল অপারেশন হৃদরোগের উন্নত চিকিৎসায় দেশে নতুন সংযোজন।

 

শুরুটা ছিল আরো আগে

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্টের দুটি ভালভ প্রতিস্থাপন করে প্রায় ১০ জনের তরুণ চিকিৎসক টিম। এর নেতৃত্বে ছিলেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আশ্রাফুল হক সিয়াম। তাঁর নেতৃত্বে ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট প্রথম এমআইসিএস পদ্ধতিতে ২ থেকে ২.৫ ইঞ্চি ছিদ্র করে হার্টের সফল অপারেশন হয়। ১২ বছর বয়সী নূপুর নামের এক কিশোরীকে সম্পূর্ণ অচেতন করে আড়াই ঘণ্টায় তখন এই সার্জারি করা হয়েছিল। ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্ডিয়াক সার্জন অধ্যাপক ডা. ফারুক আহমেদ ও ডা. প্রশান্ত কুমার চন্দ তখন উপস্থিত ছিলেন।

 

ভালভের রকমফের

হার্টের চারটি ভালভ আছে, যা রক্তে পাম্প করার সময় রক্তপ্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কাজ করে। এগুলো হলো :

ট্রাইক্রস্পিড ভালভ : এটি এমন একটি ভালভ, যা হৃৎপিণ্ডের ডান অলিন্দ ও ডান ভেন্ট্রিকলের (চেম্বার) মধ্যে সীমানা গঠন করে।

মিত্রাল ভালভ :  এটি হৃৎপিণ্ডের বাম অলিন্দ ও বাম ভেন্ট্রিকলের মধ্যে সীমানা গঠন করে।

পালমোনারি ভালভ : পালমোনারি ভালভ হার্টের ডান ভেন্ট্রিকল থেকে ফুসফুসের ধমনিতে রক্তপ্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ করে।

এওরটিক ভালভ : এটি এমন একটি ভালভ, যা বাম ভেন্ট্রিকল থেকে রক্তপ্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং সারা শরীরে রক্তপ্রবাহ অব্যাহত থাকে।

 

ভালভ প্রতিস্থাপন কখন?

হার্টের ভেতর রক্ত চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য চারটি ভালভ বা কপাটিকার এক বা একাধিকটিতে যদি কোনো সমস্যা দেখা দেয়, তখন হার্টের কাজেও ব্যাঘাত ঘটে, শরীরেও অনেক লক্ষণ প্রকাশ পায়।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে হার্টের ভালভজনিত সমস্যা হয় জন্মগত কারণে, কিছু হয় অন্যান্য কারণে। বাতজ্বরের কারণে হার্টের ভালভের সমস্যা দেখা দেয়। বৃদ্ধ বয়সেও ভালভে চর্বি ও ক্যালসিয়াম জমে এর কার্যকারিতা নষ্ট করে দিতে পারে। যে কোনো কারণেই হোক ভালভে সমস্যা হলে হৃৎপিণ্ডে রক্ত পাম্প করার সঠিক কাজটি ব্যাহত হয়। হার্ট সার্জারি করা হয় এটি সংশোধন করতে। তখন সার্জনরা হয় ভালভটি মেরামত করেন অথবা প্রতিস্থাপন করেন।

 

এমআইসিএস পদ্ধতি কী?

মিনিমালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারি (এমআইসিএস) হলো ভালভ প্রতিস্থাপনে হার্টের জটিল, তবে অত্যাধুনিক পদ্ধতির অপারেশন।

সাধারণভাবে ভালভ প্রতিস্থাপন করতে ওপেন হার্ট সার্জারি অর্থাৎ বুকের পাঁজর কাটতে হয়। কিন্তু এমআইসিএস পদ্ধতিতে পাঁজর না কেটে বুকের বাম পাশে মাত্র ২ থেকে ৩ ইঞ্চি ছিদ্র করে ক্যামেরার সাহায্যে হার্টে ঢুকে ভালভ প্রতিস্থাপন করা যায়। ঠিক স্তনবৃন্তের নিচে ছিদ্রটি করা হয়। ছিদ্র দিয়ে ভেতরে অস্ত্রোপচার অস্ত্র ও একটি ক্যামেরার সঙ্গে একটি কনসোল ব্যবহার করে ভালভ রিপ্লেসমেন্ট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়।

 

সুবিধা

এই ধরনের সার্জারিতে বা এই পদ্ধতিতে অপারেশনের সুবিধা হলো :

♦ বুকের পাঁজর বা হাড় কাটা লাগে না

♦ ছোট ছিদ্র করা হয় বলে রোগীর রক্তক্ষরণও কম হয়

♦ অপারেশনে সময় কম লাগে

♦ পোস্ট অস্ত্রোপচারে ব্যথা খুব কম থাকে

♦ বুকের পাঁজর বা হাড় কাটা লাগে না বলে জোড়া লাগারও কোনো বিষয় থাকে না

♦ ইনফেকশনের ঝুঁকি কম থাকে

♦ ওষুধপত্র কম লাগে

♦ শ্বাসক্রিয়ায় ইতিবাচক প্রভাব ফেলে

♦ রক্তের সংক্রমণের ঝুঁকি কম হয়, কম রক্ত লাগে

♦ প্রবীণ ও ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য  আদর্শ পদ্ধতি, কারণ অস্ত্রোপচার-পরবর্তী সংক্রমণের আশঙ্কা হ্রাস করে।

♦ চিকিৎসা ব্যয় কিছুটা কম

♦ রোগী দ্রুত সুস্থ হয়ে বাড়ি যেতে পারে ইত্যাদি।

 

চিকিৎসা ব্যয়

বিশ্বের অন্যান্য দেশে এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্টের ভালভ প্রতিস্থাপন অত্যন্ত ব্যয়বহুল একটি চিকিৎসা পদ্ধতি। সেখানে স্বাভাবিক অপারেশনের থেকে কয়েক গুণ বেশি খরচ পড়ে।

আশার কথা হলো, আমরা যেহেতু সরকারি হাসপাতালে সার্জারিটা করতে পেরেছি, সেহেতু এখানে ওপেন করে অপারেশন করার থেকে এই পদ্ধতিতে অপারেশন করায় খরচ কম হয়েছে। টাকার হিসেবে যদি বলি তাহলে দুই লাখ টাকার মতো খরচ হয় বলা যায়। মিনিমালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারির মাধ্যমে হার্টের ভালভ প্রতিস্থাপনে ভারতের চেয়ে অন্তত এক-তৃতীয়াংশ খরচ কম হবে। আমরা আশা করছি, পশ্চিম বাংলাসহ বিভিন্ন দেশ থেকেও মানুষ এখন হার্টের চিকিৎসা করাতে বাংলাদেশে আসবে। এ ক্ষেত্রে এই সাফল্য ধরে রাখতে হবে।

অনুলিখন : আতাউর রহমান কাবুল



সাতদিনের সেরা