kalerkantho

বুধবার । ১২ কার্তিক ১৪২৭। ২৮ অক্টোবর ২০২০। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

হার্ট ভালো রাখে যেসব খাবার

জেনিফার বিনতে হক, পুষ্টি বিশেষজ্ঞ, গ্রিন লাইফ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হার্ট ভালো রাখে যেসব খাবার

হার্ট বা হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখতে খাদ্যতালিকায় কিছু খাবার অন্তর্ভুক্ত করলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব। এর জন্য অবশ্য দেহের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখাও জরুরি। হার্ট ভালো রাখে এমন কিছু খাবার হলো—

 

কমলা

কমলায় রয়েছে পেকটিন নামের আঁশ, যা কোলেস্টেরল কমাতে বেশ সহায়ক। এতে আরো আছে পটাসিয়াম, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। একটি মাঝারি আকৃতির কমলায় ৬২ ক্যালরি থাকে এবং তিন গ্রাম আঁশ থাকে। তাই নিয়মিত খাদ্যতালিকায় কমলাকে স্থান দিন।

 

কম চর্বিযুক্ত টক দই

টক দইয়ে থাকে ক্যালসিয়াম ও পটাসিয়াম, যা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। আর রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকলে হার্টও সুস্থ থাকে। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই লো ফ্যাটযুক্ত বা কম চর্বিযুক্ত টক দই বেছে নিতে হবে।

 

জলপাই তেল

জলপাই তেল হার্টের জন্য স্বাস্থ্যকর অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ। এটি হার্টের রক্তনালিগুলোকে সুরক্ষা প্রদান করতে পারে। মাখনের মতো অন্যান্য স্যাচুরেটেড ফ্যাটের পরিবর্তে রান্নায় পরিমিত মাত্রায় জলপাই তেল ব্যবহার করলে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানো সম্ভব। সবজি রান্না কিংবা সালাদে অল্প পরিমাণ জলপাই তেল ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

কাঠবাদাম

কাঠবাদামে রয়েছে আঁশ, প্লান্ট স্টেরল এবং হার্টের জন্য উপকারী ফ্যাট। কাঠবাদাম এলডিএল নামের খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে বেশ সহায়ক। তাই নিয়মিত কাঠবাদাম গ্রহণের মাধ্যমে হার্টকে সুস্থ রাখা সম্ভব।

 

ওমেগা থ্রি যুক্ত মাছ

সামুদ্রিক মাছে থাকে হার্টের জন্য উপকারী ওমেগা ফ্রি ফ্যাটি এসিড এবং প্রোটিন, যা হৃদরোগের আশঙ্কাকে অনেকাংশে কমিয়ে দেয়। এটি ধমনিতে প্ল্যাক তৈরির প্রক্রিয়াকে ধীর বা মন্থর করে দেয়। সপ্তাহে কমপক্ষে দুইবার ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিডযুক্ত মাছ গ্রহণ করা উচিত। এ জন্য টুনা, স্যালমন, ইলিশ, পাঙ্গাশ, রূপচাঁদা মাছ খাদ্যতালিকায় রাখা যেতে পারে।

 

ওটমিল

ওটমিলে রয়েছে প্রচুর দ্রবণীয় আঁশ, যা হার্টের বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে। সমীক্ষায় দেখা গেছে, ওটস এলডিএল এবং টোটাল কোলেস্টেরল কমিয়ে আনতে সক্ষম।

 

বার্লি

খোসাযুক্ত বার্লিতে রয়েছে ব্যাপক আঁশ, যা কোলেস্টেরল কমাতে সহায়ক। অনেক ক্ষেত্রে এটি রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে। ভাতের পরিবর্তে খোসাসমেত বার্লি খাওয়া যেতে পারে। স্যুপ তৈরিতেও মাঝেমধ্যে বার্লি ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

শাকসবজি

শাকসবজিতে ক্যালরি খুব কম থাকে; কিন্তু ভরপুর থাকে আঁশ, খনিজ, ভিটামিন। প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ শাকসবজি গ্রহণ করলে দেহের সঠিক ওজন ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। টমেটো, ব্রকোলি, পালংশাক, মিষ্টি আলুতে থাকে প্রচুর পুষ্টি, যা হার্ট ভালো রাখার জন্য খুব উপকারী। এ ছাড়া হলুদ, কমলা, লাল, সবুজ ইত্যাদি রঙের সবজি মিশিয়ে রান্না করলে তা আরো উচ্চ পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ হয়।

মন্তব্য