kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৬ সফর ১৪৪২

যা করবেন, যা করবেন না

ডা. সৈয়দা সামিনা মাহজাবিন, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, রাজারবাগ, ঢাকা

৮ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যা করবেন, যা করবেন না

বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে, করোনাভাইরাসের আক্রমণ দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। তাই এই সময় কভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধের উপায়গুলো মেনে চলার পাশাপাশি প্রয়োজন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্থাৎ দেহের ইমিউন সিস্টেম বাড়িয়ে তোলা। এতে সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকিগুলো, যেমন—রেসপিরেটরি ও গ্যাস্ট্রোইনটেসটিন্যাল সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায়। পাশাপাশি কিছু বিধি-নিষেধও মেনে চলতে হয়।

 

খাবারদাবার

►        বেশি পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে হবে। মূলত পাঁচ ধরনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। এগুলো হলো ভিটামিন ‘এ’, ‘সি’, ‘ই’, বিটা-ক্যারোটিন, লাইকোপেন, লুটেইন সেলেনিয়াম ইত্যাদি। পাশাপাশি পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার বেশি খেতে হবে।

►        সবজির মধ্যে লেবু, করলা (কোয়ারসেটিন, কেয়েমপফেরল, বিটা-ক্যারোটিনসমৃদ্ধ), বেগুন বা লাল বাঁধাকপি, বিট, ব্রকোলি, গাজর, টমেটো, মিষ্টি আলু, ক্যাপসিকাম, ফুলকপি ইত্যাদি বেশি খাওয়া উচিত।

►        পালংশাক এবং অন্যান্য সবুজ শাক খাওয়া উচিত।

►        কমলালেবু, পেঁপে, আঙুর, আম, কিউই, আনার, তরমুজ, বেরি, জলপাই, আনারস ইত্যাদি খেতে পারেন।

►        খাদ্যতালিকায় নিয়মিত রাখা যেতে পারে আদা, রসুন, হলুদ, দারচিনি, গোলমরিচ।

►        খাদ্যতালিকায় রাখুন শিমের বিচি, মটরশুঁটি, বিচিজাতীয় খাবার, বার্লি, ওটস, লাল চাল ও আটা, বাদাম।

►        সবুজ চা (গ্রিন টি) ও ব্ল্যাক টিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে, যা জীবাণু প্রতিরোধের যৌগ তৈরি করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এ ছাড়া ভিটামিন বি-৬, জিংকজাতীয় খাবার (বিচিজাতীয়, বাদাম, সামুদ্রিক খাবার, দুধ ইত্যাদি) বেশি খেতে হবে।

 

যেসব খাবার নয়

কার্বনেটেড ড্রিংকস, বিড়ি, সিগারেট, জর্দা, তামাক, সাদাপাতা, খয়ের ইত্যাদি দৈনিক খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। এগুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় বাধা দিয়ে ফুসফুসে সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়। ঠাণ্ডা খাবার, যেমন—আইসক্রিম, চিনি ও চিনির তৈরি খাবার ভাইরাসের সংক্রমণে সহায়তা করে। তাই ঠাণ্ডা খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।

 

অতিরিক্ত তাপে রান্না নয়

অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের খুব ভালো কাজ পেতে হলে খাবার রান্নার সময় অতিরিক্ত তাপে বা দীর্ঘ সময় রান্না না করে পরিমিত তাপমাত্রায় রান্না করতে হবে। কিছু খাবার, যেমন—ফল, লেবু, সালাদ ইত্যাদি তাজা অবস্থায় সরাসরি খাওয়া ভালো।

 

দরকার পর্যাপ্ত ঘুম

ভালো স্বাস্থ্যের জন্য ঘুম অত্যাবশ্যক। স্বল্প পরিমাণ ঘুম শরীরে কর্টিসল হরমোনের চাপ বাড়িয়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। তাই এই সময়ে পর্যাপ্ত (দৈনিক কমপক্ষে ছয় থেকে আট ঘণ্টা) ঘুমাতে হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা