kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নারীদের রুটিন চেক আপ

ডা. মৌসুমী মরিয়ম সুলতানা

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারীদের রুটিন চেক আপ

বছরের পর বছর পেরিয়ে গেলেও বেশির ভাগ নারীই রুটিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা তেমন করেন না। অন্তত বয়স বেড়ে শরীর খারাপ লাগার আগ পর্যন্ত তো নয়ই। অথচ পুরুষদের মতো নারীদেরও উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, স্ট্রোক ইত্যাদি হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বরং নারীরা এর বাইরে আরো কিছু রোগের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকেন, যেখানে রুটিন পরীক্ষার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। যেমন—স্তন ক্যান্সার, জরায়ু বা জরায়ুমুখের ক্যান্সার। আবার কিছু রোগ আছে, যা নারীদের বেশি হয়। যেমন—থাইরয়েডের সমস্যা বা নানা ধরনের বাতরোগ। তাই রোগ হোক বা না হোক, নারীদেরও রুটিন পরীক্ষার দিকটিতে বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

 

পরীক্ষা-নিরীক্ষা

❏ পূর্ণবয়স্ক নারীদের বছরে অন্তত একবার রক্তচাপ মাপা উচিত।

❏ যদি কেউ ওজনাধিক্য বা স্থূলতায় ভোগেন, পরিবারে যদি ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের ইতিহাস থাকে, তবে ২০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে রক্তে শর্করা বা চর্বি পরীক্ষা শুরু করা উচিত।

❏ গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ মাপা এবং রক্তে শর্করা দেখা জরুরি।

❏ ২১ বছর বয়স থেকে জরায়ুমুখ ক্যান্সার স্ক্রিনিং শুরু করা উচিত। এ জন্য চিকিৎসককে দিয়ে পরীক্ষা করা যায়, সঙ্গে প্যাপস স্মেয়ার টেস্ট, যা প্রতি তিন বা পাঁচ বছর পর পর করালে ভালো।

❏ মাসে অন্তত একবার নিজেই নিজের স্তন পরীক্ষা বা সেলফ ব্রেস্ট এক্সামিনেশন শিখে নিয়ে করা উচিত। এটা শুরু করা উচিত ২০ বছর বয়স থেকেই। যদি পরিবারে স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস থাকে বা স্তনে কোনো অস্বাভাবিকতা ধরা পড়ে, তবে চিকিৎসকের পরামর্শে আলট্রাসনোগ্রাফি বা ম্যামোগ্রাফি করা যেতে পারে। ৪০ বছরের আগে সাধারণত ম্যামোগ্রাফির কথা বলা হয় না।

❏ ৫০ বছরের পর কোলন ক্যান্সার নির্ণয় করতে কলনোসকপি পরীক্ষার ওপর জোর দেওয়া হয়। তবে চিকিৎসকের সন্দেহ হলে এর আগেও করা যায়।

❏ এ ছাড়া বছরে অন্তত একবার দাঁত ও চোখ পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া ভালো।

বংশগত নানা রোগ, মুটিয়ে যাওয়া, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি সেবনে নানা রোগ থেকে ঝুঁকিমুক্ত থাকতে নিয়মিত বা রুটিন পরীক্ষা-নিরীক্ষাগুলো করানো ভালো। এতে লুকায়িত কিছু রোগ আগের ভাগেই নির্ণয় করে চিকিৎসা নিলে জটিলতা এড়ানো যায়।

লেখক : মেডিসিন বিশেষজ্ঞ

ইব্রাহিম জেনারেল হাসপাতাল, মিরপুর, ঢাকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা