kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১                       

গান, কবিতা, আবৃত্তি ও নৃত্যে স্বাধীনতা উৎসব শুরু

‘অশুভের সাথে আপসবিহীন দ্বন্দ্ব চাই’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



‘অশুভের সাথে আপসবিহীন দ্বন্দ্ব চাই’

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গতকাল শুরু হয় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত তিন দিনব্যাপী ‘স্বাধীনতা উৎসব’। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকার অন্যান্য স্থানের চেয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বরাবরই নিরিবিলি ও শান্ত প্রকৃতির। প্রায় প্রতিদিনই কমবেশি দর্শনার্থী আসে এখানে। তবে গতকাল রবিবার ছিল ব্যতিক্রম, লোকসমাগম ছিল বেশ। এর মধ্যেই শহীদ মিনারের মূল বেদিতে দেখা গেল একঝাঁক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বকে। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামার গোধূলির আলোর পাশাপাশি শহীদ মিনারের সৌন্দর্য যেন বাড়িয়ে দিল একঝাঁক শিল্পীর অমিয় কণ্ঠে ভেসে আসা ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’।

গান, কবিতা আবৃত্তি আর নৃত্যে সময় গড়িয়ে যাওয়ার সঙ্গে লোকে লোকারণ্য হতে থাকে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। যেন মানুষের মিছিলে আবার প্রকম্পিত হবে ঐতিহাসিক কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। না, এ মিছিল বায়ান্নর মাতৃভাষা বা একাত্তরের স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য নয়, গতকালের এ মিছিল ছিল সংস্কৃতিচর্চার মাধ্যমে দেশের সাম্প্রদায়িক অপশক্তি ও উগ্রবাদকে রুখে দেওয়ার। আর এই মিছিলে শামিল হন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী-শিক্ষক, সাংস্কৃতিক কর্মী, দোকান কর্মচারী, গৃহিণী, পথচারী, রিকশা শ্রমিক, তরুণ-বৃদ্ধসহ সর্বস্তরের মানুষ।

‘অশুভের সাথে আপসবিহীন দ্বন্দ্ব চাই’ শীর্ষক স্লোগানে প্রতিবছরের মতো তিন দিনব্যাপী ‘স্বাধীনতা উৎসবের’ আয়োজন করে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট। গতকাল বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তিন দিনব্যাপী এই উৎসবের উদ্বোধন করেন নাট্যব্যক্তিত্ব ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ছাড়াও একই দিনে ধানমণ্ডির রবীন্দ্রসরোবর মঞ্চে আয়োজন করা হয় স্বাধীনতা উৎসবের। প্রথম দিনে রবীন্দ্রসরোবর মঞ্চে দলীয় সংগীত পরিবেশন করে পঞ্চভাস্কর, স্বপ্নবিকাশ কলাকেন্দ্র। একক সংগীত পরিবেশন করেন বুলবুল মহলানবিশ, সানজিদা মঞ্জুরুল হ্যাপী, সালমা চৌধুরী, প্রলয় সাহা, ফেরদৌসী কাকলী ও শিমুল সাহা। আর দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করে আবৃত্তি একাডেমি ও বৈকুণ্ঠ আবৃত্তি একাডেমি। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, মীর বরকত ও তামান্না সারোয়ার নীপা। রঙ্গপীঠ পথনাটক, ঘাস ফুল নদী দলীয় নৃত্য এবং শিশু সংগঠন সপ্তকলির আসরেরও পরিবেশনা ছিল। উৎসবের দ্বিতীয় দিনে আজ সোমবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও ধানমণ্ডি রবীন্দ্রসরোবর মঞ্চে থাকছে একক ও দলীয় সংগীত, একক ও দলীয় আবৃত্তি, পথনাটক, দলীয় নৃত্য ও শিশু-কিশোর পরিবেশনা।

উদীচীর সম্মেলন ও গণসংগীত উৎসব শুরু বৃহস্পতিবার : ঐতিহ্যবাহী সংগঠন উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর একবিংশ জাতীয় সম্মেলন এবং দশম সত্যেন সেন গণসংগীত উৎসব ও জাতীয় গণসংগীত প্রতিযোগিতা শুরু হবে আগামী বৃহস্পতিবার। ওই দিন বিকেল ৩টায় গুলিস্তানে ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চ প্রাঙ্গণে উদীচীর একবিংশ জাতীয় সম্মেলন এবং দশম সত্যেন সেন গণসংগীত উৎসব উদ্বোধন করবেন বরেণ্য শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. অজয় রায়।

গতকাল রবিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান আয়োজকরা। এতে সংগঠনের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন।

জামসেদ আনোয়ার তপন বলেন, গানে-কবিতায়, নাটকে, চিত্র-চলচ্চিত্রে ভ্রান্তিহীন আর ক্লান্তিহীন লড়াইয়ের ডাক দিয়ে উদীচীর জাতীয় সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। এবারের আয়োজনের স্লোগান নির্ধারণ করা হয়েছে ‘সময়ের ভ্রান্তিতে টলো না, লড়াইটা কখনোই ভুলো না’।

‘জাতীয় চলচ্চিত্র কেন্দ্র’ প্রতিষ্ঠার দাবি : দেশের চলচ্চিত্র সংসদ আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী সংগঠন ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশ (এফএফএসবি) গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় চলচ্চিত্র কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছে। আগামী ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবসে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।  

গতকাল বিকেল ৪টায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার ইন্টারন্যাশনাল ডিজিটাল কালচারাল আর্কাইভ কক্ষে এফএফএসবি সভাপতি স্থপতি লাইলুন নাহার স্বেমির সভাপতিত্বে ওই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জ্যেষ্ঠ চলচ্চিত্র সংসদকর্মী সিরাজুল ইসলাম খান, চলচ্চিত্রকার প্রসূন রহমান, চলচ্চিত্রকার রাজীবুল হোসেন। লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক চলচ্চিত্র নির্মাতা ও লেখক বেলায়াত হোসেন মামুন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা