kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

ময়লা-দুর্গন্ধে পানি খাওয়ার উপায় নেই!

গ্যাসসংকটে দিনভর দুর্ভোগ

জহিরুল ইসলাম   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ময়লা-দুর্গন্ধে পানি খাওয়ার উপায় নেই!

বাসাবাড়িতে পানি না থাকায় মহল্লার ওয়াসার পানির ট্যাপ থেকে পানি সংগ্রহ করছে এলাকাবাসী। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের মানুষ ঠিকমতো ওয়াসার পানি পাচ্ছে না। আর পানি পেলেও ময়লা ও দুর্গন্ধের কারণে মুখে তোলা যায় না। সেই সঙ্গে রয়েছে গ্যাসসংকট। দিনে গ্যাস থাকলেও এমন মাত্রায় থাকে, যা দিয়ে রান্নার উপায় থাকে না। রান্নার জন্য অপেক্ষা করতে হয় সন্ধ্যা পর্যন্ত। অন্যদিকে পানির সমস্যার কারণে এলাকার মানুষকে ওয়াসার মহল্লার পানির ট্যাপ থেকে পানি নিয়ে খেতে হয়। এ ছাড়া অভিযোগ আছে, সংস্কারকাজ চলা খেলার মাঠসহ এলাকার কয়েকটি স্থানে সন্ধ্যার পর মাদক সেবন এবং বিক্রি হয়।

শহীদনগর ৮ নম্বর গলির বাসিন্দা মুজিবুর রহমান। থাকেন পাশের টিনশেড এক বাসায়। ফুচকা বিক্রি করে জীবন চালানো মুজিবুর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কী করমু কন? বড় লোকরা টাকা দিয়া কিন্না পানি খাইতে পারে। আমাদের কি তাতে পোষায়! কষ্ট কইরা দূর থাইকা পানি আইনা রাখি। আর পানি না থাকলে খাই না। আর পানি আসলেও ময়লা-দুর্গন্ধ, যাইনা-শুইনা বিষ খাই আর কি।’ ৮ নম্বর গলির গৌড়ী বালা পানি সমস্যার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘সব সময় পানি থাকে না। আসলেও ময়লা পানি। খাওয়াও যায় না, আবার অন্য কাজেও ব্যবহার করা যায় না।’

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের বেশির ভাগ জায়গাতেই পানি সমস্যা প্রকট। কেল্লার মোড় থেকে শহীদনগর সড়ক দিয়ে হাফেজ্জী হুজুর সড়ক, আর এ এন ডি শহীদনগর, নারায়ণ দত্ত রোডসহ শহীদনগর ১ থেকে ৯ নম্বর গলির সব বাসাতেই রয়েছে পানি সমস্যা। শহীদনগর ৫ নম্বর গলিতে থাকেন জোবেদা। তিনি বলেন, ‘পাঁচতলায় থাকি, সব সময় পানির সমস্যায় ভুগি। পানি আসলেও পাকা মরিচের রঙের মতো পানি। এগুলো দেখলেও বমি আসে।’

পানির সমস্যা নিয়ে কথা বললে ওয়াসা জোন-২-এর উপবিভাগীয় প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পুরান ঢাকার এই এলাকায় উচ্ছেদ অভিযানের কারণে কয়েক দিন পানি দেওয়া বন্ধ ছিল। এ ছাড়া শহীদনগর ৯ ও ৫ নম্বর গলিতে ময়লা পানি পাওয়া যাচ্ছে, সেটি আমরা জানি।’ কী কারণে ময়লা পানি আসছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পাম্প কোনো কারণে বন্ধ হলে ময়লা পানি আসতে থাকে। ওয়াসার লাইনে ছিদ্র থাকার কারণে এমনটা হচ্ছে। প্রতিদিনই আমরা সমস্যার সন্ধান করছি। হয়তো কেউ অবৈধ লাইন নিতে গিয়ে লাইন ছিদ্র করে ফেলেছে। স্থানীয় কাউন্সিলরের সহায়তা পেলে কাজ করতে সুবিধা হবে।’

জানা যায়, পানির সমস্যার সঙ্গে আরো বেশি ভোগাচ্ছে গ্যাসসংকট। দিনের বেলা গ্যাস থাকে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। গ্যাস সমস্যা হয় কি না—এমন প্রশ্নের উত্তরে শহীদনগর ৩ নম্বর সড়কের এক হোটেল দোকানি বলেন, ‘বাসাবাড়িতে পানি না থাকলে না হয় সন্ধ্যায় বা সকালে রান্না করা যায়। হোটেলে পানি সমস্যা হলে কিভাবে ব্যবসা করব। তার পরও কোনো রকম টিকে আছি।’ সন্ধ্যার পর বালুঘাট মাঠ, শহীদনগর ৭ ও ৪ নম্বর গলিতে মাদক সেবক এবং বিক্রেতাদের আনাগোনা বাড়ে বলে জানায় এলাকার কেউ কেউ।

সমস্যাগুলো নিয়ে কথা বললে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মোসাদ্দেক হোসেন জাহিদ বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে পানি সমস্যা চলছে। পানি সমস্যার সমাধানের জন্য ওয়াসার সঙ্গে বেশ কয়েকবার কথা বলেছি। আশা করছি, কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমার পক্ষ থেকে আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আর গ্যাসসংকটের বিষয়টি পুরো পুরান ঢাকার একই অবস্থা।’ এলাকায় মাদক নিয়ন্ত্রণে কোনো পদক্ষেপ নিয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এই ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে এলাকার মানুষের স্বার্থে আমি সব কাজ করছি। কিছু জায়গায় মাদক সেবনের অভিযোগ ছিল। এলাকাবাসীর তৎপরতা আর পুলিশের সহায়তায় এখন মাদক নেই বললেই চলে।’ লালবাগ থানার ওসি সুবাস কুমার পাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘একসময় এই এলাকায় মাদকের আখড়া ছিল। এখন আগের তুলনায় শূন্যের কোঠায়। তার পরও থানার পুলিশ সার্বক্ষণিক টহলে থাকছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা