kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

আরো ১৫ প্রতিষ্ঠানের সেবা সংযোগ বিচ্ছিন্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আরো ১৫ প্রতিষ্ঠানের সেবা সংযোগ বিচ্ছিন্ন

পুরান ঢাকার চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ আগুনের পর টাস্কফোর্সের রাসায়নিক গুদাম উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত আছে। গতকাল বুধবার পর্যন্ত ১২ দিনের অভিযানে আরো ১৫টি ভবনের পরিষেবা (গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইন) বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে অভিযানকারী দল।

এ নিয়ে গত ১২ দিনে মোট ১৪৮টি ভবনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করার তথ্য পাওয়া গেছে। এ ছাড়া অভিযানের সময় লালবাগ, বংশাল ও চকবাজারের বিভিন্ন এলাকার ১০টি প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করেছে টাস্কফোর্স। একই সঙ্গে দাহ্য পদার্থ রাখায় এবং অগ্নিনির্বাপনের ব্যবস্থা না থাকায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে আট লাখ টাকা জরিমানা করেছে অভিযান পরিচালনাকারী ডিএসসিসির পাঁচটি দল।

ডিএসসিসির কর্মকর্তারা জানান, রাসায়নিক গুদাম এবং কারখানা সরানোর ব্যাপারে আগের চেয়ে অনেকটাই নমনীয় হয়েছে বাসিন্দারা। টাস্কফোর্সের অভিযানে সহযোগিতা করছে তারা। তবে রাসায়নিক গুদাম ও কারখানা নিয়ে পুলিশের প্রতিবেদন এখনো জমা পড়েনি সিটি করপোরেশনে। অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে রাজউকের ভবন পরিদর্শক, সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগ এবং বিস্ফোরক পরিদপ্তরের কর্মকর্তারা সহযোগিতা করছেন। অভিযান পরিচালনার সময় টাস্কফোর্সের সার্বিক নিরাপত্তায় কাজ করছে পুলিশ।

ডিএনসিসির মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রাসায়নিক গুদাম এবং কারখানা সরাতে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। পুলিশের কোনো তালিকা আনুষ্ঠানিকভাবে সিটি করপোরেশনে এখনো জমা পড়েনি। কোনো বিভাগে জমা পড়েছে কি না, তাও জানা নেই আমার।’

অভিযান সম্পর্কে টাস্কফোর্স সূত্র জানায়, গতকাল সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ডিএসসিসির টাস্কফোর্সের পাঁচটি টিম অভিযান শুরু করে। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে শুরু হওয়া অভিযানের সময় চকবাজার, বংশাল ও লালবাগ এলাকার কেমিক্যালের গুদামে অভিযান চালানো হয়।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় কালের কণ্ঠকে জানান, টাস্কফোর্সের অভিযানে এ পর্যন্ত ১৪৮টি পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এক লাখ টাকা জরিমানা ও একজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা