kalerkantho

শনিবার । ২০ জুলাই ২০১৯। ৫ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৬ জিলকদ ১৪৪০

বুয়েটে শিক্ষার্থীদের ১৬ দাবি

ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ ষষ্ঠ দিনে গড়াচ্ছে

গভীর উদ্বেগ শিক্ষক সমিতির

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২০ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ ষষ্ঠ দিনে গড়াচ্ছে

১৬ দফা দাবিতে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করে। একপর্যায়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে তারা। ছবিটি গতকাল দুপুরে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

নিয়মিত শিক্ষক মূল্যায়ন প্রগ্রাম, নতুন ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের পরিচালককে অপসারণ, গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি, আবাসিক হলের অবকাঠামো উন্নয়নসহ ১৬ দফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে প্রশাসনিক ভবনে তালা ও রাস্তা অবরোধ কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা। উদ্ভূত পরিস্থিতি সমাধানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান কোনো কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

গতকাল টানা পঞ্চম দিনের মতো রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও প্রশাসনিক কার্যক্রমে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। পঞ্চম দিনের মতো আন্দোলন চললেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি। বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে নিজের কার্যালয়ে যাননি উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। বিভিন্ন অনুষদের ডিনরা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও সংকটের সমাধান দিতে পারেননি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখার বিষয়ে অনড় অবস্থানে শিক্ষার্থীরা।

বুয়েট সূত্র জানায়, গতকাল সকাল ১১টার দিকে বুয়েটের শহীদ মিনারের পাদদেশে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। পরে শহীদ মিনারের পাশেই ক্যাম্পাসের ভেতরের পলাশী-বকশীবাজার রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে অবরোধ করে রাখে। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। দুপুর আড়াইটার আন্দোলন স্থগিত করে। তবে দাবি আদায়ে বৃহস্পতিবার আবারও বিক্ষোভ করার ঘোষণা দেয় তারা।

দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি বুয়েট শিক্ষক সমিতির

শিক্ষার্থীদের চলমান কর্মসূচির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও প্রশাসনিক কার্যক্রমে অচলাবস্থা বিরাজ করছে উল্লেখ করে ক্যাম্পাসে দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। গতকাল শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ কে এম মাসুদ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. মোস্তফা আলী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়।

শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক ছাত্রলীগের

এদিকে শিক্ষার্থীদের দাবিদাওয়ার বিষয়টি গতকাল শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির কাছে তুলে ধরেন বুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি জামী উস সানী ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল। তাঁদের সঙ্গে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীও ছিলেন। দুপুরে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর কার্যালয়ে দেখা করেন তাঁরা।

জামী উস সানী বলেন, ‘আমরা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ১৬টি দাবি তুলে ধরেছি। তিনি যে দাবিগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করা সম্ভব সেগুলো বাস্তবায়ন করতে উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলবেন এবং যেগুলো সময়সাপেক্ষ সেগুলোর দ্রুত পরিকল্পনা করার বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন।’

শিক্ষার্থীদের ১৬ দফা দাবি হলো বুয়েট গেটের জন্য সিভিল-আর্কিটেকচার ডিপার্টমেন্টের বিশেষজ্ঞ শিক্ষকদের নিয়ে কমিটি গঠন এবং নকশার জন্য ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে প্রতিযোগিতার আয়োজন করার অফিশিয়াল নোটিশ প্রদান; বিতর্কিত নতুন ছাত্রকল্যাণ পরিচালককে অপসারণ করে ছাত্রবান্ধব পরিচালক নিয়োগ; ছাত্রী হলের নাম ‘সাবেকুন নাহার সনি হল’ করা, শিক্ষার্থীদের ১০৮ ক্রেডিট অর্জনের পর ডাবল সাপ্লিমেন্ট পুনর্বহাল; ভিসি অফিসে আটকে পড়া বিভিন্ন আবাসিক হলের অবকাঠামোগত কাজ সম্পাদন; ‘সিয়াম-সাইফ’ নামে সুইমিং পুল কমপ্লেক্স স্থাপনে ভিসির স্বাক্ষরসহ নোটিশ; নির্মাণাধীন টিএসসি ভবন ও ন্যাম ভবনের কাজ শুরু করা; নিয়মিত শিক্ষক মূল্যায়ন প্রোগ্রাম চালু; বুয়েটের যাবতীয় লেনদেনে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু; নির্বিচারে ক্যাম্পাসের গাছ কাটা বন্ধ ও যতগুলো গাছ কাটা হয়েছে তার দ্বিগুণ গাছ উপাচার্যের উপস্থিতিতে লাগানো; গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি; প্রাতিষ্ঠানিক মেইল আইডি প্রদান; ওয়াইফাই আধুনিকায়ন; ব্যায়ামাগার আধুনিকায়ন; বুয়েট মাঠের উন্নয়ন ও পরীক্ষার খাতায় রোলের পরিবর্তে কোড সিস্টেম চালু।

মন্তব্য