kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

পাক সেনাপ্রধান বাজওয়া

রাজনৈতিক দলকেও আচরণ নিয়ে ভাবতে হবে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ নভেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেনাবাহিনী তার পরিবর্তন শুরু করেছে। আশা করি রাজনৈতিক দলগুলোও তাদের আচরণ নিয়ে ভাববে। পাকিস্তানের বিদায়ি সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া বুধবার প্রতিরক্ষা ও শহীদ দিবসের অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন।

১৯৬৫ সালের পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধে নিহত সেনাদের আত্মত্যাগের স্মরণে প্রতিবছর ৬ সেপ্টেম্বর রাওয়ালপিন্ডির সেনা সদর দপ্তরে প্রতিরক্ষা ও শহীদ দিবসের অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

তবে বন্যার্তদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে এ বছর তা স্থগিত করা হয়েছিল।

জেনারেল বাজওয়া তাঁর বত্তৃদ্ধতার শুরুতে বলেন, ‘আজ আমি শেষবারের মতো সেনাপ্রধান হিসেবে প্রতিরক্ষা ও শহীদ দিবসে ভাষণ দিচ্ছি। ’

বত্তৃদ্ধতার শেষ অংশে বিদায়ি সেনাপ্রধান বলেন, তিনি রাজনৈতিক বিষয়ে কিছু কথা বলতে চান। জেনারেল বাজওয়া বলেন, ‘সারা বিশ্বের সেনাবাহিনী খুব কমই সমালোচিত হয়। কিন্তু আমাদের সেনাবাহিনী প্রায়ই সমালোচনার শিকার হয়। আমি মনে করি, এর কারণ রাজনীতিতে সেনাবাহিনীর সম্পৃক্ততা। সে কারণেই ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনী রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ না করার সিদ্ধান্ত নেয়। ’

জেনারেল বাজওয়া বলেন, ‘অনেক মহল সেনাবাহিনীকে সমালোচনার মুখে ফেলেছে এবং অযথার্থ ভাষা ব্যবহার করেছে। সেনাবাহিনীর সমালোচনা করা (রাজনৈতিক) দল ও জনগণের অধিকার, তবে ভাষা ব্যবহার করায় সতর্ক থাকা উচিত। ’

বাজওয়া বলেন, একটি ‘মিথ্যা বর্ণনা’ তৈরি করা হয়েছিল, যেখান থেকে এখন ‘বের হয়ে আসার’ চেষ্টা করা হচ্ছে।

পাকিস্তানের বিদায়ি সেনাপ্রধান বলেন, সেনাবাহিনী তার পরিবর্তনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে এবং আশা করে রাজনৈতিক দলগুলোও তা অনুসরণ করে বিষয়টি নিয়ে ভাববে। এটি বাস্তবতা যে রাজনৈতিক দল, সুধীসমাজসহ প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ভুল করেছে। জেনারেল বাজওয়া বলেন, দেশ গুরুতর অর্থনৈতিক সমস্যার মুখোমুখি এবং কোনো একক দল দেশকে আর্থিক সংকট থেকে বের করতে পারবে না। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা অবশ্য প্রয়োজন। সূত্র : দ্য ডন



সাতদিনের সেরা