kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০২২ । ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

লিমান ফিরে পেয়ে চাঙ্গা ইউক্রেন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লিমান ফিরে পেয়ে চাঙ্গা ইউক্রেন

এলাকা পুনর্দখলের পর রুশ হামলায় বিধ্বস্ত বাড়ির সামনে ইউক্রেনের পতাকা ওড়ানো হয়। ছবি : গার্ডিয়ান

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় গুরুত্বপূর্ণ শহর লিমানকে রুশ সেনামুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি। গতকাল রবিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি লেখেন, ‘লিমান পুরোপুরি শত্রুমুক্ত হয়েছে। আমাদের সেনাবাহিনীকে ধন্যবাদ!’

লিমান শহর দোনেত্স্ক অঞ্চলে অবস্থিত। ইউক্রেনের যে চারটি পূর্ণ বা আংশিক অধিকৃত অঞ্চলকে রাশিয়া শুক্রবার নিজেদের ভূখণ্ড বলে ঘোষণা করেছে, দোনেত্স্ক তার একটি।

বিজ্ঞাপন

লিমান শহর ওই অঞ্চলে রাশিয়ার সেনাদের রসদ সরবরাহের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছিল। শহরটি দখলমুক্ত হওয়া ইউক্রেনের জন্য তাই কৌশলগতভাবে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ইউক্রেনীয় সেনারা এখন সহজেই দোনেত্স্ক ও লুহানস্কে যাতায়াত করতে পারবে।

এ প্রসঙ্গে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, শহরটিতে মোতায়েন কয়েক হাজার রুশ সেনা অবরুদ্ধ হয়ে পড়ার আশঙ্কার মধ্যে সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পদক্ষেপ নেওয়া হয়। তাদের আবার মোতায়েন করা হবে।

তবে লিমান থেকে সেনা প্রত্যাহারকে পূর্বাঞ্চলের লড়াইয়ে রাশিয়ার বড় ধরনের ব্যর্থতা হিসেবেই দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

রাশিয়ার গ্যাস সরবরাহ বন্ধ হওয়ায় আসন্ন শীত কঠিন হবে ইউরোপের জন্য। এর ভিত্তিতে অনেক পর্যবেক্ষক বলছিলেন, যুদ্ধের পেছনে পশ্চিমাদের সমর্থন ধরে রাখতে সাফল্য দেখাতে হবে ইউক্রেনকে, অন্যথায় পশ্চিমারা রাশিয়ার সঙ্গে সমঝোতায় আগ্রহী হয়ে উঠবে। বিশ্লেষকদের মত, গুরুত্বপূর্ণ শহর লিমান বিজয়ে ইউক্রেনের প্রতি পশ্চিমাদের সমর্থন আরো জোরালো হবে।

শনিবার অনলাইনে প্রকাশিত একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, রুশ সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা আসার আগেই ইউক্রেনীয় সেনারা লিমান শহরের উপকণ্ঠে তাদের জাতীয় পতাকা ওড়াচ্ছে।

এরপর এক বিবৃতিতে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, আগামী সপ্তাহের মধ্যে দনবাস অঞ্চলের আরো কিছু এলাকা পুনরুদ্ধার করা হবে। সব রুশ সেনাকে একে একে হত্যা করা হবে বলেও হুমকি দেন তিনি। জেলেনস্কি বলেন, ‘সব সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত যারা ইউক্রেনের সঙ্গে বিবেকহীনভাবে যুদ্ধ শুরু করেছে তাদের একে একে হত্যা করা হবে। ’ এ যুদ্ধকে রাশিয়ার ঐতিহাসিক ভুল বলেও আখ্যা দেন তিনি।

গত শুক্রবার ক্রেমলিনে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুতিন পূর্ব ইউক্রেনের বিশাল অংশকে নিজেদের ভূখণ্ডের সঙ্গে যুক্ত করার ঘোষণা দেন। এর মধ্যেই ইউক্রেন বাহিনী রুশ সরকারের যুক্ত করে নেওয়া অঞ্চলের লিমান শহরকে শনিবার কয়েক দিক থেকে ঘিরে ফেলার দাবি করেছিল।

ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর উপদেষ্টা ইউরিক সাক বলেছেন, রুশ সেনাদের আত্মসমর্পণের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। আত্মসমর্পণকারীদের সঙ্গে ভদ্র আচরণ করা হবে বলেও জানানো হয়েছে। এর কিছুক্ষণ পরই ক্রেমলিন জানায়, তারা লিমান শহর থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে।

রাশিয়ার বাহিনী পিছু হটলেও তাদের রেখে যাওয়া বা লুুকিয়ে রাখা মাইনসহ বিভিন্ন প্রাণঘাতী বিস্ফোরক নিষ্ক্রিয় করতে কাজ করে যাচ্ছে ইউক্রেনের সাতটি বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল।

সূত্র : বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্স



সাতদিনের সেরা