kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ছয় দশকে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে বৃহস্পতি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছয় দশকে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে বৃহস্পতি

পৃথিবীর খুব কাছে আসছে সৌরজগতের গ্রহরাজ বৃহস্পতি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ৫৯ বছর পর গ্রহটি পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে আসছে। অর্থাৎ পৃথিবীর মানুষ একটি বিরল মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী হচ্ছে।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (নাসা) জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় অনুযায়ী ২৬ সেপ্টেম্বর এই বিরল মহাজাগতিক ঘটনা প্রত্যক্ষ করার কথা মানুষের।

বিজ্ঞাপন

নাসা প্রথমে জানিয়েছিল, প্রায় ৭০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কাছাকাছি আসছে পৃথিবী ও বৃহস্পতি। পরে সংস্থাটি ভুল সংশোধন করে জানায় যে ৫৯ বছর পর এমন ঘটনা ঘটছে। শেষবার ১৯৬৩ সালের অক্টোবরে এমন ঘটনা ঘটে।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার পাসাডেনায় নাসার জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরির বিজ্ঞানী ট্রিনা এল রয় জানান, কাছাকাছি অবস্থানকালে পৃথিবী ও বৃহস্পতির মধ্যে শুধু সূর্য থাকবে। এ সময় গ্রহ দুটি পরস্পর বিপরীত দিকে অবস্থান করবে। আকাশ পরিষ্কার থাকলে টেলিস্কোপের মাধ্যমে কিংবা সেটি না থাকলে বাইনোকুলারের মাধ্যমেও এই ঘটনা দেখা সম্ভব হবে।

সায়েন্স অ্যালার্ট নামের একটি সাময়িকী ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়ে জানায়, নিজ অক্ষে আবর্তনের সময় পৃথিবী সূর্যের নিকটতম একটি বিন্দুতে অবস্থান করে, যাকে পেরিহেলিয়ন বলা হয়। একইভাবে বৃহস্পতিও তার অক্ষে আবর্তন করে পৃথিবীর বিপরীতে এসে দাঁড়ায়। অন্যদিকে দুই গ্রহ সম্পূর্ণ বৃত্তাকার পথে আবর্তন না করায় সৌরজগতে তাদের অবস্থানগত পার্থক্য হয়। সামগ্রিকভাবে গতকাল পৃথিবীর পেরিহেলিয়ন অবস্থা এবং বৃহস্পতির সঙ্গে বিপরীত দিকের কাছাকাছি অবস্থানের ফলে বিরল মহাজাগতিক ঘটনাটি ঘটছে।

নাসা জানায়, কাছাকাছি অবস্থানের সময় পৃথিবী ও বৃহস্পতির মাঝের দূরত্ব হবে ৩৬ কোটি ৭০ লাখ মাইল, যা মহাকাশ দূরত্ব হিসেবে বেশ কম। সবচেয়ে দূরে অবস্থানের বিন্দুতে থাকার সময় বৃহস্পতি থেকে পৃথিবীর দূরত্ব হয় ৬০ কোটি মাইল।

বৃহস্পতি ও পৃথিবী প্রতি বছরই এমন পরস্পর বিপরীতমুখী অবস্থানে আসে এবং তখন পৃথিবী থেকে গ্রহটিকে বেশ বড় দেখায়। কিন্তু গতকাল গ্রহটি স্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে অনেক বেশি কাছে আসছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই বিরল মহাজাগতিক ঘটনাটি আবার দেখা যাবে প্রায় ১০৭ বছর পর।

পৃথিবী থেকে বৃহস্পতি দেখতে কেমন হবে, সেই সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আকাশে বৃহস্পতিকে বেশ বড় ও উজ্জ্বলতর দেখাবে। হিউস্টনের রাইস ইউনিভার্সিটির পদার্থবিজ্ঞান ও জ্যোতির্বিজ্ঞানের অধ্যাপক প্যাট্রিক হার্টিগান জানান, খালি চোখে একে দেখতে মুক্তার সাদা দানার মতো মনে হবে।

নাসা বলছে, টেলিস্কোপ বা বাইনোকুলারে দেখার সময় এর কয়েকটি বলয়ও দেখা যাবে।

ট্রিনা এল রয় আরো বলেন, তারকাপ্রেমী দর্শকরা বৃহস্পতির তিন-চারটি উপগ্রহও দেখতে পারবে। এর অন্যতম উপগ্রহ ইউরোপাও দেখা সম্ভব হবে। সূত্র : সিএনএন ও সায়েন্স অ্যালার্ট



সাতদিনের সেরা