kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

গবেষণা প্রতিবেদন

তিন দশকে বিপত্সীমা ছাড়াবে যুক্তরাষ্ট্রের তাপমাত্রা

২০২৩ সালের মধ্যে ভুক্তভোগীর সংখ্যা হবে ৮১ লাখ, যা ২০৫৩ সাল নাগাদ ১৩ গুণ বাড়বে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কিছু অঞ্চল ২০৫৩ সালের মধ্যে ‘তীব্র তাপবলয়ে’ আক্রান্ত হবে বলে নতুন এক গবেষণায় আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। এসব অঞ্চলে ১০ কোটিরও বেশি মানুষের বাস। উত্তর টেক্সাস ও লুইজিয়ানা থেকে ইলিনয়, ইন্ডিয়ানা ও উইসকনসিন পর্যন্ত এলাকা তীব্র তাপবলয়ের কবলে পড়তে পারে।

গবেষকদের আখ্যায়িত ‘তীব্র তাপবলয়’ হচ্ছে তীব্র গরমে আক্রান্ত এমন স্থান, যেখানে বছরে অন্তত এক দিন তাপমাত্রা ৫২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছায়।

বিজ্ঞাপন

ফার্স্ট স্ট্রিট ফাউন্ডেশন নামের একটি অলাভজনক সংস্থার গবেষণা প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আবহাওয়ার ভবিষ্যৎ-সংক্রান্ত এমন পূর্বাভাস।

গবেষণা প্রতিবেদনের অন্যতম একটি দিক হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রের তাপমাত্রা দেশটির ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস নির্ধারিত তাপমাত্রার সর্বোচ্চ স্তর বা ‘তীব্র ঝুঁকির’ স্তর পেরিয়ে যাওয়ার আশঙ্কার কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ দেশটির তাপমাত্রা ৫২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে উঠে যাবে। এতে ২০২৩ সালের মধ্যে ৮১ লাখ মানুষের জীবন প্রভাবিত হবে। ২০৫৩ সালের মধ্যে ভুক্তভোগীর সংখ্যা ১৩ গুণ বেড়ে দাঁড়াবে ১০ কোটি ৭০ লাখে।

গবেষণা মডেলটি তৈরি করতে ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা ও বাতাসের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে গবেষকদল। এ দুটি পরিমাপের মধ্যে নির্ভুল সম্পর্ক নিয়ে ধারণা পেতে পরীক্ষাটি চালানো হয়। আরো গবেষণার পর এই অঞ্চলে কিভাবে পানি শোষিত হয়, ভূপৃষ্ঠের জলাধারের দূরত্ব এবং উপকূল থেকে দূরত্ব পরিমাপ করা হয়।

গবেষণা প্রতিবেদনে আরো জানানো হয়, ‘তীব্র ঝুঁকির’ দিন বাদেও পুরো যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে অতিরিক্ত গরম অনুভূত হবে। প্রতিবেদনে বলা হয়, যারা গরম আবহাওয়ার সঙ্গে অভ্যস্ত নয়, তাপমাত্রা বাড়ার ফলে তাদের ওপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব পড়বে। উদাহরণস্বরূপ, উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় মেইন রাজ্যে ১০ শতাংশ তাপমাত্রা বৃদ্ধি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্য টেক্সাসে ১০ শতাংশ তাপমাত্রা বৃদ্ধির মতোই বিপজ্জনক হতে পারে। যদিও টেক্সাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মেইন থেকে বেশি।

অত্যধিক তাপমাত্রার ফলে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের ব্যবহার বাড়বে। এতে বিদ্যুৎ ব্যবহারও বাড়বে। ফলে ঘন ঘন এবং দীর্ঘস্থায়ী বিদ্যুিবভ্রাট দেখা দেবে। সূত্র : এএফপি



সাতদিনের সেরা