kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

লিসিচানস্ক দখলের দাবি মস্কোর

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লিসিচানস্ক দখলের দাবি মস্কোর

ইউক্রেনের কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ লিসিচানস্ক শহর নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার দাবি করেছে রাশিয়া। গতকাল রবিবার মস্কো এই দাবি করে। পূর্বাঞ্চলের লুহানস্কের ওপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় এই শহর দখল রাশিয়ার জন্য বেশ বড় অগ্রগতি হিসেবে চিহ্নিত হবে। সেভেরোদনেত্স্ক শহরের প্রতিবেশী এই লিসিচানস্ক।

বিজ্ঞাপন

লিসিচানস্ক হচ্ছে দনবাসের লুহানস্ক এলাকার সর্বশেষ শহর, যা ইউক্রেনের হাতে রয়েছে। এই শহর রুশ দখলদারিতে গেলে তা বড় কিছুর ইঙ্গিত দেবে। লিসিচানস্ক শহরটির অন্য পাশে সেভেরোদনেত্স্ক শহর অবস্থিত, যা গত সপ্তাহে রুশ বাহিনী দখল করে নেয়। এ দুই শহরের মধ্যে একটি নদী রয়েছে। তবে লিসিচানস্ক শহরটির পূর্ণ পতনের কথা অস্বীকার করেছে ইউক্রেন।

রুশ সংবাদমাধ্যমে মস্কোর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ‘সের্গেই শোইগু (রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী) রুশ সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার ইন চিফ ভ্লাদিমির পুতিনকে গণপ্রজাতন্ত্রী লুহানস্কের স্বাধীনতার বিষয়টি অবহিত করেছেন। ’ এর কয়েক মিনিট আগে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র দাবি করেন, লিসিচানস্কে লড়াই চলছে এবং ইউক্রেনীয় বাহিনীকে ঘিরে ফেলা হয়েছে।

ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইউরি সাক বলেন, লুহানস্ক পুরো দখল করে নিলেও ‘খেলা (যুদ্ধ) শেষ হবে না। ’ তিনি বলেন, ‘শহরগুলো কয়েক দিন ধরে তীব্র গোলাগুলি এবং কামানের গোলার আক্রমণের মুখে রয়েছে। ’ এ সময় তিনি জোর দিয়ে বলেন, দনবাসে যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি।

লিসিচানস্ক নিয়ে দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি দাবির মধ্যে পূর্বাঞ্চলীয় দনবাসের আরেক অংশ দোনেেস্কর শহর স্লোভিয়ানস্কের মেয়র দাবি করেছেন, রুশ বাহিনী ওই শহরে বড় ধরনের হামলা করেছে। মেয়র ভাদিম লিয়াখ ফেসবুকে একটি ভিডিও প্রকাশ করে দাবি করেন, সেখানে দীর্ঘ সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বড় হামলা হচ্ছে। রুশ বাহিনী রকেট ছুড়ছে। এতে ১৫ জায়গায় আগুন লেগেছে। বহু মানুষ হতাহত হয়েছে।

এ ঘটনা সম্পর্কে দোনেত্স্ক অঞ্চলের মুখপাত্র তেতিয়ানা ইগোচেংকো জানান, রুশ হামলায় ছয়জন নিহত এবং ১৫ জন আহত হয়েছে। রুশ বাহিনীর সম্মুখ সারির সেনারা মাত্র কয়েক কিলোমিটার দূরে থাকায় বাসিন্দাদের শহর ছাড়ার আহ্বান জানান তিনি।

স্লোভিয়ানস্ক হচ্ছে সেভেরোদনেত্স্ক ও লিসিচানস্ক শহরের পর রাশিয়ার জন্য পরবর্তী বড় গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। দোনেেস্কর এই শহরে দখল প্রতিষ্ঠা করতে পারলে পুরো দনবাসে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় বড় ধরনের অগ্রগতি হবে মস্কোর।   এদিকে রুশ কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, ইউক্রেন থেকে রাশিয়ার বেলগোরদ শহর লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে। এতে তিনজন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। এ ছাড়া বেশ কিছু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অন্যদিকে রাশিয়ার মিত্র বেলারুশ অভিযোগ করেছে ইউক্রেনের বাহিনী তাদের এক সেনাচৌকিতে গোলা ছুড়েছে। সূত্র : বিবিসি ও এএফপি

 

 

 



সাতদিনের সেরা