kalerkantho

শুক্রবার । ১ জুলাই ২০২২ । ১৭ আষাঢ় ১৪২৯ । ১ জিলহজ ১৪৪৩

৩০ বছরে সবচেয়ে বড় অগ্রগতি মার্কিন সিনেটে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৩০ বছরে সবচেয়ে বড় অগ্রগতি মার্কিন সিনেটে

নতুন অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন নিয়ে বড় ধরনের দ্বিদলীয় মতৈক্যে পৌঁছেছে মার্কিন সিনেট। আইন প্রণেতারা দ্বিপক্ষীয় খসড়াটিকে দ্রুত এগিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে ভোট দিয়েছেন। ফলে আগামী সপ্তাহেই আইন হিসেবে পাস হয়ে যেতে পারে প্রস্তাবটি।

কয়েক দশকের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে এবারই প্রথম অস্ত্র আইন প্রশ্নে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে এ মাত্রার ঐক্যবদ্ধ সমর্থন দেখা গেল।

বিজ্ঞাপন

তবে দ্বিদলীয় মতৈক্য উল্লেখযোগ্য হলেও ডেমোক্র্যাট ও অধিকারকর্মীরা যতটা আশা করেছিলেন, ততটা সমর্থন অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে এটি।

সিনেটে ৬৪-৩৪ ভোটে প্রাথমিক পদ্ধতিগত বাধা অতিক্রম করেছে প্রস্তাবিত আইনটি। এতে ৪৮ জন ডেমোক্র্যাটের পাশাপাশি ১৪ জন রিপাবলিকান এবং দুজন স্বতন্ত্র সিনেটর সমর্থন দিয়েছেন।

ডেমোক্র্যাট সিনেটর ক্রিস মারফি সিনেটে বলেছেন, ‘আমি মনে করি, এই সপ্তাহে আমরা যে আইনটি পাস করব তা ৩০ বছরে কংগ্রেসের বন্দুক-সহিংসতাবিরোধী আইনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠবে। এটি একটি বড় অগ্রগতি। আরো গুরুত্বপূর্ণ কথা হচ্ছে, এটি একটি দ্বিদলীয় অগ্রগতি। ’

অন্যদিকে সিনেট সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতা চাক শুমার এ নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব এগিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

গত মঙ্গলবার প্রকাশিত ৮০ পৃষ্ঠার খসড়ায় ২১ বছরের কম বয়সী অস্ত্র ক্রেতাদের অতীত কঠোরভাবে খতিয়ে দেখার কথা বলা হয়েছে। এ ছাড়া অঙ্গরাজ্যগুলোকে ‘বিপত্সংকেত’ আইন প্রয়োগে উৎসাহিত করার করার কথা বলা হয়েছে এতে। বলা হচ্ছে, ওই ‘বিপত্সংকেত’ আইনের মাধ্যমে হুমকি হিসেবে বিবেচিত ব্যক্তিদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র দূরে রাখা সম্ভব হবে।  

মানসিক স্বাস্থ্য কর্মসূচি ও স্কুল নিরাপত্তা উন্নয়ন বাবদ এক হাজার ৫০০ কোটি ডলারের ফেডারেল তহবিল রাখার কথা বলা হয়েছে খসড়া আইনে। এ ছাড়া অবিবাহিত সঙ্গীকে নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত ব্যক্তির কাছে বন্দুক বিক্রি বন্ধ করে কথিত ‘বয়ফ্রেন্ড লুপহোল’-এর ইতি টানা হয়েছে প্রস্তাবে।

খসড়া আইনটিকে আগামী দিনে সিনেটের ধাপ পার হওয়ার পর ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত মার্কিন আইনসভার নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস বা প্রতিনিধি পরিষদের গণ্ডি পার হতে হবে। শুধু এর পরই তা স্বাক্ষরের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের টেবিলে পৌঁছবে।

যুক্তরাষ্ট্রে একের পর এক বন্দুক হামলায় নিরীহ মানুষের প্রাণহানির ঘটনা আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন প্রণয়নের দাবি ক্রমেই জোরালো করে তোলে। আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্র আইন কঠোর করার দাবিতে মধ্য জুনে আমেরিকার বিভিন্ন শহরে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ সমাবেশ করে। এই বিক্ষোভে প্রকাশ্যে সমর্থন দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন পাসে মার্কিন আইন প্রণেতাদের প্রতি আবেগঘন আহ্বান জানান।

গত মাসে টেক্সাসের এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৯ শিশুসহ ২১ জনের মৃত্যু খোদ মার্কিন আইন প্রণেতাদের মধ্যে সেই আইন প্রণয়নের তাগিদ তৈরি করে। সেই তাগিদ থেকে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে মার্কিন সিনেটররা আগ্নেয়াস্ত্র আইনের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছেছেন।

মার্কিন গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক মতামত জরিপ থেকে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেকেরও বেশি মানুষ প্রচলিত আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে পরিবর্তন চান। ৬৯ শতাংশ মার্কিন নাগরিক মনে করেন, যেকোনো

মানুষের আগ্নেয়াস্ত্রপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করা প্রয়োজন।

সূত্র : আলজাজিরা, বিবিসি

 

 



সাতদিনের সেরা