kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জুন ২০২২ । ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৯ জিলকদ ১৪৪৩

যুক্তরাষ্ট্রে স্কুলে বন্দুক হামলা

‘লম্বা সময় তো গেল, আর কবে?’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘লম্বা সময় তো গেল, আর কবে?’

টেক্সাসের এলিমেন্টারি স্কুলে বন্দুক হামলায় নিহতদের স্মরণে ফুল দিতে আসে শোকার্ত এক কিশোরী। ছবি : এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহতের ঘটনা নৈমিত্তিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।  

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার টেক্সাসের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন প্রণয়ন ও কার্যকরের প্রসঙ্গটি আরো জোরালোভাবে সামনে এসেছে।  

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আবেগঘন কণ্ঠে বলেন, ‘এ দেশের প্রত্যেক মা-বাবা, প্রত্যেক নাগরিকের বেদনাকে কাজে রূপ দেওয়ার এখনই সময়। সময়টা এখন তাদের, যারা বাস্তবিকভাবে প্রয়োজনীয় অস্ত্র আইনে বাধা দিয়েছে বা সেটা বিলম্বিত করেছে বা আটকে দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আমরা যে কখনো সেসব ভুলব না, সেটা আপনাদের জানিয়ে রাখতে চাই। ’ তাঁর প্রশ্ন, ‘জাতি হিসেবে আমাদের প্রশ্ন করতে হবে, ঈশ্বরের নামে কখন আমরা বন্দুক লবির বিরুদ্ধে দাঁড়াব? আমরা আমাদের অন্তর থেকে জানি আমাদের কী করতে হবে। ঈশ্বরের দোহাই, আমরা কখন সেই কাজ করব?’

কানেকটিকাট রাজ্যের ডেমোক্র্যাট সিনেটর ক্রিস মারফি সিনেটে দাঁড়িয়ে টেক্সাসের ঘটনা সম্পর্কে বলেন, ‘এটা তো অনিবার্য ছিল না। এসব শিশু তো দুর্ভাগা ছিল না। শুধু এ দেশেই এমনটা ঘটে, অন্য কোথাও নয়। অন্য কোথাও স্কুলগামী ছোট ছোট শিশুরা ভাবে না, আজই হয়তো তারা গুলি খাবে। ’ কথা বলার সময় প্রেসিডেন্টের মতো তাঁর কণ্ঠেও আবেগ ঝরে পড়ে। সিনেটরদের উদ্দেশে মারফি বলেন, ‘আমি এখানে এসেছি ভিক্ষা চাইতে, আক্ষরিক অর্থে হাঁটু গেড়ে বসে আমার সহকর্মীদের কাছে ভিক্ষা চাইতে এসেছি। আপনারা সামনে এগোনোর পথ খুঁজে বের করুন। আইন পাসের মাধ্যমে এ ধরনের ঘটনা কমানোর স্বার্থে একটা পথ খুঁজে বের করার জন্য আমাদের সঙ্গে কাজ করুন। ’

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ ইংরেজিতে লেখা এক টুইটে বলেন, ‘আমেরিকান জনগণের মতো আমরাও বিস্মিত ও শোকগ্রস্ত এবং আমরা তাঁদের মতোই ক্ষুব্ধ, যাঁরা এই সহিসংতার অবসান ঘটাতে লড়াই করে যাচ্ছেন। ’

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় বাস্কেটবল অ্যাসোসিয়েশনের (এনবিএ) ‘গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়র’ দলের প্রধান কোচ স্টিভ কের বাস্কেটবল ম্যাচ নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘এখন বাস্কেটবল নিয়ে প্রশ্নের কোনো অবকাশ নেই। ’ এক পর্যায়ে স্টিভ কের বলেন, ‘আমরা আর কবে এ বিষয়ে কিছু ব্যবস্থা নেব। ... আমার আর সহ্য হয় না। যথেষ্ট হয়েছে। ’

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা টুইট পোস্টে লেখেন, ‘স্যান্ডি হুকের ঘটনার পর প্রায় ১০ বছর এবং বাফেলোর ঘটনার পর ১০ দিন হয়ে গেল। আমাদের দেশ পঙ্গু হয়ে গেছে—কোনো ভয়ে নয় বরং একটা বন্দুক লবি আর একটা রাজনৈতিক দলের কারণে এমনটা হয়েছে, যারা এসব মর্মান্তিক ঘটনা প্রতিরোধে সহায়ক পদক্ষেপ নেওয়ার বিন্দুমাত্র আগ্রহ দেখায়নি। ’ সূত্র : এএফপি

 

 



সাতদিনের সেরা