kalerkantho

শনিবার । ২৫ জুন ২০২২ । ১১ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৪ জিলকদ ১৪৪৩

তাইওয়ানে হামলা হলে অস্ত্রে জবাব দেবে যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তাইওয়ানে হামলা হলে অস্ত্রে জবাব দেবে যুক্তরাষ্ট্র

ইন্দো-প্যাসিফিক ইকোনমিক ফ্রেমওয়ার্ক ফর প্রসপারিটি শীর্ষক বৈঠকে ফুমিও কিশিদা (বাঁয়ে), জো বাইডেন (মাঝে) ও নরেন্দ্র মোদি। ছবি : এএফপি

রুশ হামলায় বিধ্বস্ত ইউক্রেনকে পরোক্ষা সহায়তা দিলেও তাইওয়ানের ক্ষেত্রে সেটা হবে না, বরং তাইওয়ানে চীন হামলা চালালে সামরিকভাবেই এর জবাব দেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে বর্তমানে জাপানের রাজধানী টোকিওতে অবস্থান করছেন বাইডেন। এর আগে তিনি দক্ষিণ কোরিয়া সফর করেন। জাপান নেতৃত্বের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে আজ মঙ্গলবার তাঁর চার দেশীয় কোয়াড জোটের বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা।

বিজ্ঞাপন

এরই মধ্যে টোকিও পৌঁছেছেন জোটের আরেক সদস্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজি টোকিওর পথে রয়েছেন।

মূলত চীনকে ঠেকাতে ২০১৮ সালে কথিত কোয়াড গঠন করা হয় এবং জোটের আজকের বৈঠকে আগে সেই চীনকে উদ্দেশ্য করেই কড়া বার্তা দিলেন বাইডেন।

ওই চার জাতি বৈঠকের আগের দিন গতকাল সোমবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার সঙ্গে বৈঠকে এবং বৈঠক-পরবর্তী যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বারবার আসে চীন প্রসঙ্গ। টোকিও-ওয়াশিংটন জানায়, জলভাগে চীনের তৎপরতা এবং চীন-রাশিয়া যৌথ মহড়ার ওপর নজর রাখবে তারা। এরপর বাইডেন আরেক ধাপ এগিয়ে কথা বলেন। তাইওয়ানকে রক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র সামরিক পদক্ষেপ নেবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বাইডেন বলেন, ‘হ্যাঁ, সেই অঙ্গীকারই আমরা করেছি। ’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা এক চীন নীতিতে সম্মতি দিয়েছি, সেটাতে স্বাক্ষর করেছি। কিন্তু জোর করে (তাইওয়ানকে) নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার পরিকল্পনাটা একেবারে জুতসই নয়। এতে গোটা অঞ্চল অস্থিতিশীল হয়ে উঠবে এবং ইউক্রেনের মতো একই পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। ’

তাইওয়ান ইস্যুকে সরাসরি ইউক্রেনের সঙ্গে তুলনা করে এবং রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রসঙ্গ টেনে বাইডেন বলেন, ‘রাশিয়া যেন দীর্ঘমেয়াদে মূল্য চোকায়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে, তা না হলে চীন কী করে বুঝবে, তাইওয়ানের ওপর বল প্রয়োগের জেরে কতটা মূল্য দিতে হবে। ’

বাইডেনের এসব সতর্কবার্তার জবাবে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন বলেন, ‘জাতীয় সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় চীনের জনগণের দৃঢ় সংকল্প, প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি ও জোরালো সামর্থ্যকে খাটো করে দেখা কারো উচিত হবে না। চীনের কাছে সমঝোতা করা বা ছাড় দেওয়ার কোনো জায়গা নেই। ’

১৩ জাতি বাণিজ্য বৈঠক : গতকাল টোকিওতে অবস্থানকালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন ইন্দো-প্যাসিফিক ইকোনমিক ফ্রেমওয়ার্ক ফর প্রসপারিটি (আইপিইএফ) শীর্ষক বাণিজ্যসংক্রান্ত বৈঠকেও অংশ নেন। এতে সশরীরে তাঁর সঙ্গে ছিলেন জাপান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীদ্বয়। বাকি নেতারা ভিডিও লিংকের মাধ্যমে বৈঠকে অংশ নেন।

আইপিইএফকে বাণিজ্য জোট বলা হলেও আদতে তাতে প্রচলিত বাণিজ্য জোটের মতো শুল্ক ছাড়ের সুবিধা বা বাজার সহজীকরণ সুবিধা থাকছে না। এতে শুধু ডিজিটাল অর্থনীতি, সরবরাহব্যবস্থা, পরিচ্ছন্ন জ্বালানি অবকাঠামো তৈরি ও দুর্নীতিবিরোধী পদক্ষেপের কথা বলা হচ্ছে।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি



সাতদিনের সেরা