kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

মুখ্যমন্ত্রীর শপথে ত্রিপুরা বিজেপির ‘ফাটল’ স্পষ্ট

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুখ্যমন্ত্রীর শপথে ত্রিপুরা বিজেপির ‘ফাটল’ স্পষ্ট

মানিক সাহা

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ত্রিপুরার নতুন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সাহা শপথ গ্রহণের সময় গতকাল রবিবার পদত্যাগী মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবের মন্ত্রিসভার অনেকেই উপস্থিত ছিলেন না। এতে ত্রিপুরায় ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) ফাটল আরো স্পষ্ট হলো।

বিপ্লব দেব পদত্যাগের পর পর শনিবারই নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মানিক সাহার নাম জানিয়ে দেওয়া হয়। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এ ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

গতকাল মুখ্যমন্ত্রী মানিক রাজ্যপাল সত্যদেব নারায়ণ আর্যের কাছে শপথ নেন।

২০১৮ সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)-সিপিআইএম দলের নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী হন বিপ্লব দেব। বর্ষীয়ান বামপন্থী নেতা ও দুই দশকের মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারকে হারিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন তিনি। কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের মাত্র বছরখানেক বাকি থাকতে দলের সিদ্ধান্তে পদ ছাড়লেন বিপ্লব।

শনিবার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মানিক সাহার নাম ঘোষণা হতেই রাজ্য বিজেপির অনেক নেতা ও বিধায়ক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বিধায়ক রামপ্রকাশ পাল শনিবার দলীয় কার্যালয়ে ক্ষোভে চেয়ার ভেঙে ফেলেন। রামপ্রকাশ পাল চেয়েছিলেন বর্তমান উপমুখ্যমন্ত্রী জিষ্ণু দেববর্মা নতুন মুখ্যমন্ত্রী হন। তাঁরা দুজন গতকাল শপথ শেষ হওয়ার পর রাজভবনে উপস্থিত হন। তবে বিপ্লব দেব উপস্থিত ছিলেন না। জিষ্ণু দেববর্মা মুখ্যমন্ত্রী হতে পারেন বলে গুঞ্জনও ছিল।

মানিক সাহা পেশায় দাঁতের চিকিৎসক। মাত্র ২০১৬ সালে তিনি সরাসরি রাজনীতিতে আসেন। বর্তমানে তিনি রাজ্য বিজেপির সভাপতি। গত এপ্রিল মাসে মানিক সাহা রাজ্যসভার সংসদ সদস্য হিসেবে মনোনীত হন। এই পদের মেয়াদ দুই মাস না হতেই তাঁকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী করা হলো। নিয়ম অনুযায়ী মুখ্যমন্ত্রীর পদ টিকিয়ে রাখতে আগামী ছয় মাসের মধ্যে বিধায়ক হিসেবে জয়ী হয়ে আসতে হবে মানিক সাহাকে। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা



সাতদিনের সেরা