kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

ইউক্রেনের অভিযোগ

মানবিক করিডরেও রুশ হামলা

♦ ইউক্রেনের একেবারে পূর্বের শহরে চলছে রুশ বাহিনীর তাণ্ডব
♦ রুশ হামলায় ৪০০ হাসপাতাল, ক্লিনিক ধ্বংসের অভিযোগ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মানবিক করিডরেও রুশ হামলা

ইউক্রেনের খারকিভের একটি গ্রামে রাশিয়ার হামলায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেতুটি। এই ক্ষতিগ্রস্ত সেতুর পাশ দিয়ে বাইসাইকেল চালাচ্ছেন এক ব্যক্তি। ছবি: এএফপি

ইউক্রেনের মারিওপোল শহরের আজভস্তাল কারখানা কমপ্লেক্সে রুশ বাহিনী তিন দিনের অস্ত্রবিরতি ঘোষণা করলেও ইউক্রেনীয় বাহিনীর অভিযোগ, অস্ত্রবিরতি ভেঙেই সেখানে হামলা চালানো হচ্ছে এবং হামলায় বেসামরিক লোকজনকেও রেহাই দিচ্ছে না রুশ সেনারা।

রুশ বাহিনী গত বুধবার আজভস্তাল কারখানা এলাকায় তিন দিনের অস্ত্রবিরতি ঘোষণা করে। ঘোষণা অনুসারে দিনের বেলা তাদের হামলা বন্ধ থাকবে এবং এ সময় বেসামরিক লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলবে। রুশ সেনাদের ঘোষণা বিবেচনায় নিয়ে গতকাল আজভস্তাল থেকে বেসামরিক লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে জাতিসংঘ।

বিজ্ঞাপন

এর মধ্যে ইউক্রেনীয় বাহিনীর আজভ রেজিমেন্ট জানায়, আজভস্তাল কারখানা এলাকায় ট্যাংকবিধ্বংসী অস্ত্র ব্যবহার করেছে রুশ সেনারা। বেসামরিক লোকজনকে সরিয়ে নিতে ব্যবহৃত একটি গাড়ি লক্ষ্য করে হামলাটি চালানো হয়। হামলায় ইউক্রেনের এক যোদ্ধা নিহত এবং ছয়জন আহত হয়। নিজেদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে আজভ রেজিমেন্ট বলে, ‘শত্রুপক্ষ সব চুক্তি লঙ্ঘন অব্যাহত রেখেছে এবং বেসামরিক লোকদের নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার নিশ্চয়তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। ’

আজভ রেজিমেন্ট গত বৃহস্পতিবার দাবি করেছিল, অস্ত্রবিরত হলেও আজভস্তালে রুশ হামলা অব্যাহত রয়েছে। আজভ রেজিমেন্টের এসব দাবি স্বাধীনভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে বিবিসি ও সিএনএন।

অবরুদ্ধ আজভস্তাল কারাখানা কমপ্লেক্স থেকে গত সপ্তাহে ৫০০ বেসামরিক লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি। কিন্তু এর পরও সেখানকার বেসমেন্টে প্রায় ২০০ জন আটকে থাকার কথা জানান মারিওপোলের মেয়র। তাদের সরিয়ে নিতেই গতকাল থেকে তৎপরতা শুরু করে জাতিসংঘ।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় আরেক শহর দখলে লড়াই চলছে : মারিওপোলের পাশাপাশি ইউক্রেনের একেবারে পূর্ব দিকের সেভেরোদোনেত্স্ক শহর দখলে হামলা চালাচ্ছে রুশ বাহিনী। শহরের আশপাশের গ্রামগুলো দিয়ে তারা সেখানে প্রবেশের চেষ্টা করছে।

স্থানীয় সামরিক প্রশাসনের প্রধান ওলেকসান্দর স্তিরুক সম্প্রচার মাধ্যমকে জানান, রুশ সেনা ও লুহানস্কের বিচ্ছিন্নতাবাদী পিপলস রিপাবলিকের সদস্যারা সেভেরোদোনেত্স্ক শহরের প্রায় পুরোটাই ঘিরে ফেলেছে। তিনি আরো জানান, ইউক্রেনীয় সেনারা রুশ সেনাদের প্রচেষ্টা বারবার ভেস্তে দেওয়ার পরও হামলা অব্যাহত রয়েছে।

এক লাখ জনগোষ্ঠীর সেভেরোদোনেত্স্ক শহরে এখনো প্রায় ১৫ হাজার বেসামরিক লোকজন রয়ে গেছে বলে জানান স্তিরুক।

‘রুশ হামলায় প্রায় ৪০০ হাসপাতাল, ক্লিনিক ধ্বংস’ : গত বৃহস্পতিবার একটি দাতব্য মেডিক্যাল গোষ্ঠীর উদ্দেশে দেওয়া ভিডিও বক্তৃতায় ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, ‘শুধু মেডিক্যাল অবকাঠামোর কথাই যদি ধরেন, আজকের দিন পর্যন্ত রাশিয়ার সেনারা ৪০০ স্বাস্থ্যসেবা ইনস্টিটিউট : হাসপাতাল, প্রসূতি ওয়ার্ড, ক্লিনিক ধ্বংস বা ক্ষতিসাধন করেছে। ’ রুশ বাহিনীর দখলে যাওয়া এলাকাগুলোর পরিস্থিতি বিপর্যয়কর মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, ‘ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা করার মতো কোনো ওষুধ নেই। ডায়াবেটিসের ইনসুলিন নেই। পরিস্থিতি অত্যন্ত কঠিন। অস্ত্রোপচার করা অসম্ভব হয়ে উঠেছে। ’

 

ইউক্রেনে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশ বাহিনীর সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত বহু শহর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে, কয়েক হাজার লোক নিহত হয়েছে, ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ দেশ ছেড়ে পালিয়েছে।

লাভরভের ‘হিটলার’ মন্তব্যের জন্য পুতিন ক্ষমা চেয়েছেন বলে দাবি

জার্মানির নািস নেতা অ্যাডলফ হিটলারের শরীরে ‘ইহুদি রক্ত’ ছিল, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই লাভরভের এমন মন্তব্যের জন্য দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ক্ষমা চেয়েছেন বলে জানিয়েছে ইসরায়েল। গত বৃহস্পতিবার এক ফোনকলে পুতিনের সঙ্গে কথা বলার পর ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট এ কথা জানান।

লাভরভ গত রবিবার ইতালির এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘জেলেনস্কি ইহুদি তো কী হয়েছে? তিনি ইহুদি হলেও তাঁর নািস যোগ উড়িয়ে দেওয়া যায় না। হিটলারও অর্ধেক ইহুদি ছিলেন। আমার বিশ্বাস তাঁর শরীরেও ইহুদি রক্ত ছিল। ’ তাঁর এ মন্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় ইসরায়েল।

 

গত বৃহস্পতিবার পুতিনের সঙ্গে কথা বলার পর বেনেট জানান, তিনি পুতিনের ক্ষমা প্রার্থনা গ্রহণ করেছেন। ‘ইহুদি জনগণের এবং ইহুদি নিধনের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা স্পষ্ট’ করায় রাশিয়ার নেতাকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এদিকে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভের কাছে জানতে চাওয়া হয়, পুতিন আসলেই লাভরভের বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন কি না। দুবার এ ধরনের প্রশ্ন করা হলে প্রতিবারই উত্তর দিতে অস্বীকৃতি জানান পেসকোভ। সূত্র : এএফপি, সিএনএন

 



সাতদিনের সেরা