kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

মিয়ানমারে ব্যবসার সময় জান্তার সঙ্গে সম্পর্ক নয়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মিয়ানমারে ব্যবসার সময় জান্তার সঙ্গে সম্পর্ক নয়

মিয়ানমারে ব্যবসা করতে গিয়ে কোনো প্রতিষ্ঠান যেন ‘মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী’ সামরিক শাসকের সঙ্গে জড়িয়ে না পড়ে, সেটা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় রাখার ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। একের পর এক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান মিয়ানমার ছাড়ার প্রেক্ষাপটে গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের এ সতর্কবার্তা এলো।

যুক্তরাষ্ট্রের ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরের এক বিবৃতিতে বুধবার বলা হয়, মিয়ানমারে জান্তা নিয়ন্ত্রিত ব্যাবসায়িক কার্যক্রমের সঙ্গে যাঁরা জড়িত, তাঁরা গুরুতরভাবে সুনাম নষ্ট হওয়ার ঝুঁকিতে তো আছেনই, সেই সঙ্গে অর্থনৈতিক ও আইনি ঝুঁকিতেও আছেন। যথাযথ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে না পারলে ওই সব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করা এবং অর্থপাচার করার অভিযোগ আসতে পারে।

বিজ্ঞাপন

মিয়ানমারের রত্ন ও মূল্যবান ধাতব পদার্থ খাত, আবাসন ও নির্মাণ খাত এবং অস্ত্র বাণিজ্য খাতের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করে মার্কিন প্রশাসনের বিবৃতিতে বলা হয়, সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও খাতগুলোকে মিয়ানমারের সামরিক শাসকের অর্থের প্রাথমিক উৎস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব খাতে বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এ বিবৃতি কোনো আইনি নির্দেশ নয়, শুধু পরামর্শ এমনটাও বলা হয় গত বুধবার। পরামর্শ বা সতর্কতা, যেটাই বলা হোক না কেন, এমন এক সময় এসংক্রান্ত বিবৃতি এলো যখন একের পর আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান মিয়ানমার ছাড়ছে।

সর্বশেষ গতকাল বৃহস্পবাির অস্ট্রেলিয়ার জ্বালানি প্রতিষ্ঠান উডসাইড মিয়ানমার থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেয়। মিয়ানমারে ৯ বছর ধরে চলা কার্যক্রম বন্ধ করার ব্যাপারে শেয়ারহোল্ডারদের উদ্দেশে দেওয়া বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, মিয়ানমারে ‘মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে’ বলে তারা দেশটিতে ব্যবসা বন্ধ করে দিচ্ছে। এতে উডসাইডকে কমপক্ষে ২০ কোটি মার্কিন ডলার গচ্চা দিতে হচ্ছে বলে বিবৃতিতে দাবি করা হয়।

এর আগের সপ্তাহে টোটালএনার্জি ও শেভরন মিয়ানমারে কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দেয়। মিয়ানমারে বিনিয়োগের পরিকল্পনা স্থগিত করা কিংবা দেশটিতে কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া প্রতিষ্ঠানের তালিকায় আরো আছে টেলিনর, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, ভলতালিয়া ও টয়োটা।

২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সরকার হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। গ্রেপ্তার করা হয় অং সান সু চি ও তাঁর সহযোগীদের। নির্বাচনে কারচুপি, দুর্নীতি, করোনাবিধি লঙ্ঘনসহ ছোট-বড় বিভিন্ন অভিযোগে সু চির বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে এক মামলায় তাঁকে দুই বছরের কারাদণ্ডও দেওয়া হয়েছে। আর জান্তাবিরোধী আন্দোলকারীদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান, ধরপাকড়, মামলা-হামলা তো আছেই।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক আজ : সামরিক অভ্যুত্থানের পরপরই দেশটির সেনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে পশ্চিমা দেশগুলো। সংকট নিরসনে গত বছর এপ্রিলে মিয়ামারের জান্তা প্রধান মিন অং হ্লাইংকে নিয়ে বৈঠক করে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ১০ দেশের জোট আসিয়ান। সংকট কাটাতে পাঁচটি বিষয়ে ঐকমত্য হয় ওই বৈঠকে। কিন্তু জান্তা সরকার সেই ঐকমত্য অনুযায়ী কিছুই বাস্তবায়ন করেনি।

এ অবস্থায় আসিয়ানের বর্তমান প্রধান কম্বোডিয়া ফের এগিয়ে আসে। কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী এ মাসের শুরুর দিকে মিয়ানমার সফর করেন। তবে তাতে কোনো ফল হয়নি।

এবার মিয়ানমারের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে কম্বোডিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করবে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। আজ শুক্রবারের এ বৈঠকে জাতিসংঘের মিয়ানমারবিষয়ক বিশেষ দূতও উপস্থিত থাকবেন বলে জানায় সংবাদমাধ্যমগুলো। সূত্র : এএফপি



সাতদিনের সেরা