kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

ইউক্রেনে মস্কোপন্থী নেতা বসাতে চান পুতিন

যুক্তরাজ্যের অভিযোগ, মস্কো বলল ‘বাজে কথা’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইউক্রেনে মস্কোপন্থী নেতা বসাতে চান পুতিন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে মস্কোপন্থী একজন সরকারপ্রধান বসানোর ষড়যন্ত্র করছেন বলে অভিযোগ করেছে যুক্তরাজ্য। মস্কো এ অভিযোগ অস্বীকার করে ‘বাজে কথা’ আখ্যা দিয়ে তা উড়িয়ে দিয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে রাশিয়ার সম্ভাব্য আগ্রাসন থেকে বাঁচাতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুত ‘প্রাণঘাতী’ অস্ত্রের প্রথম চালান ইউক্রেনে পৌঁছেছে।

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সৈন্য জড়ো করা এবং দেশটিতে রুশ হামলার আশঙ্কা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাজ্য বলেছে, তাদের কাছে তথ্য রয়েছে, কিয়েভে মস্কোপন্থী একজন নেতাকে ক্ষমতায় বসানোর পথ খুঁজছেন পুতিন।

বিজ্ঞাপন

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর ইউক্রেনে ক্রেমলিনের পছন্দের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে ইউক্রেনের সাবেক এমপি ইয়েভেন মুরায়েভের নাম উল্লেখ করেছে। এক বিবৃতিতে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর বলেছে, তাদের কাছে তথ্য রয়েছে, রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মুরায়েভসহ রাশিয়ার সাবেক রাজনীতিকদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য-প্রমাণ প্রকাশ করেনি ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর।

যুক্তরাজ্যের এই অভিযোগের পর গতকাল রবিবার ইয়েভেন মুরায়েভ বলেছেন, ইউক্রেনের নতুন নেতৃত্ব প্রয়োজন। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘ইউক্রেনের জনগণের চাই নতুন আইনের শাসন, সুষ্ঠু ও বাস্তবসম্মত অর্থনৈতিক ও সামাজিক নীতি এবং নতুন রাজনৈতিক নেতা। ’

যুক্তরাষ্ট্রের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা রাশিয়ার এ কথিত ষড়যন্ত্রকে ‘ব্যাপক উদ্বেগজনক’ বলে অভিহিত করেছেন।

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর প্রতিক্রিয়ায় টুইটে বলেছে, ‘ভুল তথ্য প্রচার করার এ বিষয়টি এটাই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, অ্যাংলো স্যাক্সন জাতি দ্বারা গঠিত ন্যাটোর সদস্যরা উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলছে। ’ তবে  রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু ইউক্রেন সংকটের বিষয়ে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেসের সঙ্গে দেখা করার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন।

জার্মানির নৌপ্রধানের পদত্যাগ : ইউক্রেন নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে পদত্যাগ করেছেন জার্মানির নৌবাহিনী প্রধান কে আশিম শনবাখ। শুক্রবার ভারতে এক গবেষণা প্রতিষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে তিনি বলেছিলেন, ‘রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ করতে চায়—এটা বাজে কথা। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কেবল সম্মান চান। ’ ইউক্রেনের ক্রিমিয়া উপদ্বীপ ২০১৪ সালে রাশিয়ার দখল করে নেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এটা গেছে এবং ইউক্রেন তা আর কখনো ফিরে পাবে না। ... পাশ্চাত্যের উচিত পুতিনকে সমকক্ষ হিসেবে বিবেচনা করা। ’

এ মন্তব্যের পর বিতর্ক শুরু হওয়ায় আশিম শনবাখ শনিবার বলেন, নিজের বক্তব্য নিয়ে ‘আরো ক্ষতি এড়ানোর জন্য’ তিনি পদ থেকে সরে যাচ্ছেন।

এদিকে ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা কিয়েভকে অস্ত্র সরবরাহে অস্বীকৃতি জানানোয় শনিবার জার্মানির নিন্দা জানিয়েছে। তিনি জার্মানির প্রতি ‘পুতিনকে উৎসাহিত করা’ এবং ‘ঐক্য নষ্ট’ করার মতো আচরণ বন্ধ করার আহবান জানান।

ইউক্রেনে ‘প্রাণঘাতী’ সামরিক সহায়তা পাঠাল যুক্তরাষ্ট্র : রাশিয়ার হামলার আশঙ্কার মধ্যে ইউক্রেনে ‘সামরিক সরঞ্জাম’ পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ৯০ টন ওজনের এই সহায়তাকে ‘প্রাণঘাতী’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। শুক্রবার জেনেভায় দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সংক্ষিপ্ত বৈঠক শেষ হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই চালানটি ইউক্রেনে পৌঁছে। ইউক্রেন নিজে ছাড়াও তার প্রতিবেশী তিনটি বাল্টিক রাষ্ট্র দেশটির জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কাছে সামরিক সহায়তা চেয়ে আসছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র সহায়তার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেক্সি রেজনিকভ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত ডিসেম্বরে ইউক্রেনের জন্য ২০ কোটি ডলারের নিরাপত্তা সহায়তা অনুমোদন করেন। সূত্র : এএফপি, বিবিসি



সাতদিনের সেরা