kalerkantho

মঙ্গলবার ।  ১৭ মে ২০২২ । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩  

ইউক্রেনকে অস্ত্র দেবে যুক্তরাষ্ট্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাশিয়ার আক্রমণের হুমকিতে থাকা উদ্বিগ্ন ইউক্রেনকে অস্ত্র দেবে যুক্তরাষ্ট্র। বাল্টিক দেশগুলো এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ জানিয়েছিল। গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, তাঁর ধারণা, রাশিয়া ইউক্রেনে সেনা পাঠাবে, তবে পূর্ণ মাত্রায় যুদ্ধে জড়াবে না। তিনি আবারও সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ইউক্রেনে আক্রমণ করা হলে তার জন্য রাশিয়াকে কঠোর মূল্য দিতে হবে।

বিজ্ঞাপন

বার্লিনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, মিত্রদের কাছে থাকা মার্কিন অস্ত্র দ্রুত ইউক্রেনে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করা হচ্ছে। আগামী দিনগুলোতে ইউক্রেনকে নিরাপত্তা সহায়তা দিতে যা যা দরকার, যুক্তরাষ্ট্রের  ইউরোপীয় মিত্রদের তা রয়েছে।

অস্ত্র পাঠানো অনুমোদনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলেছে, সাবেক সোভিয়েতভুক্ত দেশ এস্তোনিয়া, লাটভিয়া ও লিথুনিয়া ইউক্রেনকে জরুরি সহায়তা দেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ করেছিল।

তবে ইউক্রেনকে কী পরিমাণ ও কী ধরনের অস্ত্র পাঠানো হবে তা উল্লেখ করা হয়নি। বাল্টিক দেশগুলোর কাছে থাকা উল্লেখযোগ্য অস্ত্র হলো বহনযোগ্য ট্যাংকবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র। ইতিমধ্যে যুক্তরাজ্য ইউক্রেনকে এ ধরনের অস্ত্র দিচ্ছে বলে জানিয়েছে।

লিথুনিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরভিডাস আনুসাসকাস নিশ্চিত করেছেন যে তাঁর দেশ রাশিয়াকে আক্রমণ থেকে বিরত রাখার জন্য ইউক্রেনে প্রতিরক্ষা ও অন্যান্য সাহায্য পাঠাচ্ছে।

বাইডেনের কথায় বিভ্রান্তি : ক্ষমতা গ্রহণের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে বুধবার হোয়াইট হাউসে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে জো বাইডেন রাশিয়াকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ইউক্রেনে ‘সম্প্রর্ণ শক্তি’ নিয়ে আক্রমণ করা হলে তার জন্য দেশটিকে কঠোর মূল্য দিতে হবে। বাইডেনের এ হুঁশিয়ারিতে কেউ কেউ বিভ্রান্ত হয়ে মনে করেন যে, ‘ছোটখাটো আক্রমণ’ করলে তেমন প্রতিক্রিয়া হবে না। এ নিয়ে বেশ আলোচনা হলে হোয়াইট হাউস বাইডেনের বক্তব্য স্পষ্ট করে।

তাৎক্ষণিকভাবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের এ বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতারা। তাঁরা বলেন, বাইডেন তাঁর বক্তব্যে স্পষ্টতই রুশ সৈন্যদের আক্রমণ করার অনুমোদন দিয়েছেন।

রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও বাইডেনের মন্তব্যকে ‘উদ্ভট’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘সুতরাং যদি (পুতিন) শুধু ইউক্রেনের কিছু অংশ দখল করে নেন, তবে আমাদের প্রতিক্রিয়া কম হবে?’

পরে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেন, ‘যদি রাশিয়া ইউক্রেনে অনুপ্রবেশ করে এবং নতুন করে আক্রমণ করে তবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের দ্রুত ও কঠোর ঐক্যবদ্ধ প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে তা মোকাবেলা করা হবে। ’

রাশিয়া গতকাল বৃহস্পতিবার জো বাইডেনের কথার কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছে, এ ধরনের বক্তব্য পরিস্থিতিকে ‘অস্থিতিশীল’ করছে।

ইউক্রেনে থাকা মার্কিন সেনা প্রত্যাহার : রাশিয়া যদি ইউক্রেনে আক্রমণ করে তবে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী বর্তমানে ইউক্রেনে অবস্থানরত তাদের সেনাদের প্রত্যাহার করতে বাধ্য হতে পারে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি



সাতদিনের সেরা