kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

‘টিকায় উদাসীন হলে মহাবিপদ’

♦ দক্ষিণ আফ্রিকায় সংক্রমণ বাড়ছে
♦ বহু বছর পর্যন্ত প্রতিবছর টিকা দিতে হতে পারে
♦ টিকা বাধ্যতামূলক করার কথা ভাবছে ইইউ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘টিকায় উদাসীন হলে মহাবিপদ’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) করোনাভাইরাসের টিকাদানের বিষয়ে উদাসীনতার বিপদ সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছে। সংস্থাটির প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়েসাস বলেছেন, টিকাদানের পরিধিতে অনেক তারতম্য এবং পরীক্ষার হার কম হওয়ায়ই করোনাভাইরাসের বিস্তার ঘটে নতুন ধরনের জন্ম হচ্ছে। এদিকে অন্যতম শীর্ষ টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজারের প্রধান অ্যালবার্ট বুরলা বলেছেন, সর্বোচ্চ সুরক্ষা পেতে বহু বছর পর্যন্ত প্রতিবছরই জনগণকে টিকা দিয়ে যেতে হতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম বলেন, ‘সংক্রমণ প্রতিরোধে এবং অতি সংক্রামক ডেল্টা ধরন থেকে জীবন বাঁচাতে এরই মধ্যে যেসব উপায় হাতে রয়েছে, তা ব্যবহার করা প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন

তা করা হলে আমরা ওমিক্রনের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও প্রাণহানি রোধ করতে পারব। ’

ডাব্লিউএইচও জানিয়েছে, ওমিক্রন সত্যিকার অর্থেই বেশি সংক্রামক ও ভয়াবহ কি না এবং বর্তমান চিকিৎসা পদ্ধতি ও টিকা ভাইরাসটির বিরুদ্ধে কার্যকর কি না, তা জানতে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে।

নতুন ধরনের প্রাদুর্ভাবের প্রেক্ষাপটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বাধ্যতামূলকভাবে টিকা দেওয়ার কথা ভাবছে। ব্রাসেলসে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভ্যান ডার লেইন বলেন, ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বাধ্যতামূলক টিকা প্রদানের বিষয়টিকে উৎসাহিত করা নিয়ে আলোচনা করার সময় এসেছে। অস্ট্রিয়া, জার্মানি ও গ্রিস এরই মধ্যে এ ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া বা বিবেচনার কথা জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করেছে, তারা দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা এক ব্যক্তির শরীরে প্রথম ওমিক্রন শনাক্ত করেছে। টিকার পূর্ণাঙ্গ ডোজ নেওয়া ওই ব্যক্তি হালকা লক্ষণ থেকে সেরে উঠছেন।

এ নিয়ে বিশ্বের কমপক্ষে ২৪টি দেশে ওমিক্রন শনাক্ত হলো বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ভারতের কর্ণাটক রাজ্যে দুজনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। ফ্রান্স জানিয়েছে, দেশটির মূল ভূখণ্ডে নাইজেরিয়া থেকে আসা এক ব্যক্তির শরীরে প্রথম ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার অবস্থা : এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকায় এক দিনের ব্যবধানে করোনা সংক্রমণের হার দ্বিগুণ হয়েছে। প্রথম শনাক্ত হওয়ার চার সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে দেশটিতে প্রাধান্য বিস্তার করেছে ওমিক্রন। এখন পর্যন্ত ওমিক্রন শনাক্ত হওয়া ব্যক্তিদের রোগের হালকা লক্ষণ দেখা যাচ্ছে।

টিকা ও ওষুধ বিষয়ে : বায়োএনটেকের প্রধান নির্বাহী বলেছেন, তাঁরা ফাইজারের সঙ্গে যৌথভাবে যে টিকা তৈরি করেছে, তা সম্ভবত ওমিক্রনের বিরুদ্ধে দৃঢ় সুরক্ষা দিতে সক্ষম। এদিকে যুক্তরাজ্যের নিয়ন্ত্রক সংস্থা গতকাল কভিড রোগের তীব্র লক্ষণের ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের চিকিৎসায় গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইনের ওষুধ সোট্রোবিমাবের অনুমোদন দিয়েছে। জিএসকে দাবি করেছে, ওষুধটি ওমিক্রনের বিরুদ্ধেও কার্যকর হবে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।  



সাতদিনের সেরা