kalerkantho

শুক্রবার । ৭ মাঘ ১৪২৮। ২১ জানুয়ারি ২০২২। ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার আগেই ইউরোপে ঢুকেছে ওমিক্রন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার আগেই ইউরোপে ঢুকেছে ওমিক্রন

নেদারল্যান্ডস সরকার বলেছে, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা বিমানযাত্রীদের শরীরে শনাক্ত হওয়ার এক সপ্তাহ আগেই দেশটিতে করোনার ওমিক্রন ধরনের উপস্থিতি ছিল। এ তথ্য প্রকাশের পর ওমিক্রনের বিস্তার কতটা হয়েছে, তা নিয়ে উদ্বেগ বেড়ে যেতে পারে।

ইউরোপের মধ্যে নেদারল্যান্ডসেই এ পর্যন্ত ওমিক্রন সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ গতকাল মঙ্গলবার বলেছে, গত ১৯ ও ২৩ নভেম্বর দুটি টেস্টের নমুনায় তারা ওমিক্রন শনাক্ত করেছে।

বিজ্ঞাপন

তখন যে দুজনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে, তাদের সঙ্গে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের কোনো যোগসূত্র রয়েছে কি না এবং এই ভাইরাসের কতটা বিস্তার ঘটেছে, তা খতিয়ে দেখছে ডাচ কর্তৃপক্ষ।

এর আগে ২৬ নভেম্বর দুটি ফ্লাইটে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে নেদারল্যান্ডসে আসা যাত্রীদের মধ্যে ১৪ জনের শরীরে প্রথম ওমিক্রন পাওয়ার কথা জানা গিয়েছিল।

নতুন তথ্যের অর্থ হচ্ছে, দক্ষিণ আফ্রিকা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানোর আগের নমুনাতেই করোনাভাইরাসের নতুন এই ধরন শনাক্ত হয়েছে নেদারল্যান্ডসে। এর মানে দক্ষিণ আফ্রিকাসহ আফ্রিকার দক্ষিণের দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার আগেই এই ধরন ইউরোপে ঢুকে পড়েছে।

নেদারল্যান্ডসের জাতীয় জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক ইনস্টিটিউট (আরআইভিএম) বলেছে, ১৯ ও ২৩ নভেম্বর যে দুটি নমুনা নেওয়া হয়েছিল তাতে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে।

আরআইভিএম বলেছে, এটি এখনো স্পষ্ট নয় যে ওই দুই ব্যক্তি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এসেছিল কি না। ওমিক্রন শনাক্তের বিষয়টি ওই দুজনকে জানানো হয়েছে। পৌর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তদন্ত শুরু করেছে।

নেদারল্যান্ডসে মোট ১৬ জনের শরীরে করোনার নতুন ধরনটি শনাক্ত হলো, যা ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। এদিকে বেশি সংক্রামক ওমিক্রন নিয়ে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গতকাল বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উৎপাদিত টিকার পারস্পরিক স্বীকৃতি দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন। রাশিয়ার একটি বিনিয়োগ ফোরামে বক্তব্য দেওয়ার সময় পুতিন বলেন, সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়ার মাধ্যমেই শুধু এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে ‘কার্যকর লড়াই’ চালানো সম্ভব। পাশাপাশি পুতিন করোনাভাইরাসের ওষুধ তৈরির বিষয়েও দেশগুলোকে একসঙ্গে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন।

রাশিয়া ২০২০ সালের আগস্ট থেকে করোনাভাইরাসের জন্য নিজেদের তৈরি স্পুিনক ভি দেওয়া শুরু করে। বেশ কিছু দেশ ওই টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দিলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা টিকাটির স্বীকৃতি দেয়নি। তবে শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেটের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, টিকাটি নিরাপদ এবং ৯০ শতাংশ কার্যকর।

রাশিয়া নিজেরাও সে দেশে বিদেশি অন্য কোনো টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয়নি।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মডার্না গতকাল সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, দ্রুত সংক্রমণশীল ওমিক্রনের বিরুদ্ধে তাদের বর্তমান টিকা হয়তো তেমন কার্যকর হবে না। মডার্নার প্রধান স্টিফেন ব্যানসেল ফিন্যানশিয়াল টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা কতটুকু সে সম্পর্কিত তথ্য দুই সপ্তাহের মধ্যে পাওয়া যাবে। ব্যানসেল জানান, তাঁর সঙ্গে কথা হওয়া সব বিজ্ঞানীই তাঁকে বলেছেন, ওমিক্রনের বিরুদ্ধে এটা (টিকা) ভালো হবে না।

মডার্না প্রধানের এই বক্তব্যের পর স্টক এক্সচেঞ্জগুলোতে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের দাম কমে যায়। এদিকে মডার্নার পাশাপাশি ফাইজার ও জনসন অ্যান্ড জনসন জানিয়েছে, তারা শুধু ওমিক্রনের জন্য টিকা তৈরির কাজ করছে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।



সাতদিনের সেরা