kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

বিশ্বজুড়ে ফের বাড়ছে সংক্রমণ

করোনা মহামারি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইউরোপের দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়েই চলছে। করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে আগামী মার্চের মধ্যে ইউরোপ ও এশিয়ার কিছু অংশে সাত লাখ লোকের মৃত্যু হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও)।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইউরোপ অঞ্চলভুক্ত ৫৩টি দেশে এরই মধ্যে কমবেশি ১৫ লাখ লোকের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার সঙ্গে আগামী মার্চের মধ্যে ইউরোপের ৪৯টি দেশের হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রগুলোতে (আইসিইউ) রোগীর চাপ ব্যাপক বাড়বে বলে সতর্ক করেছে ডাব্লিউএইচও।

এদিকে নতুন করে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ইসরায়েল পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দিতে শুরু করেছে। চলতি গ্রীষ্মজুড়েই ইসরায়েলে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। এর আগে ইসরায়েল করোনার টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু করে।

গতকাল বুধবার পোল্যান্ড সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, সংক্রমণের হার না কমলে নাগরিকদের চলাচলে পুনরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হতে পারে। গতকালের হিসাবে, দেশটিতে আগের ২৪ ঘণ্টায় ২৮ হাজার ৩৮০ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। সংক্রমণের হার গত সপ্তাহের চেয়ে ১৭ শতাংশ বেশি। সেখানে বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন ৪৬০ জনের মৃত্যু ঘটছে। তবে সংক্রমণ বাড়ার পরও নেদারল্যান্ডস ও অস্ট্রিয়ায় বিক্ষোভের কথা উল্লেখ করে দেশটির সরকার নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে অনিচ্ছুক। পোল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে সংক্রমণের হার না কমলে পুনরায় নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হতে পারে।

স্লোভাকিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১০ হাজার ৩১৫ জন আক্রান্ত হয়েছে।

বিশ্বজুড়ে করোনার সংক্রমণ নতুন করে বাড়ার প্রেক্ষাপটে গত সোমবার চীন এক দিনে ৬৫ লাখ নাগরিককে টিকা দিয়েছে। চীনের ১০০ কোটিরও বেশি মানুষ টিকার পূর্ণাঙ্গ ডোজ পেয়েছে বলে জানানো হয় গণমাধ্যমের খবরে।

ভারতের কর্মকর্তারা বলছেন, কভিড টেস্ট কমিয়ে দেওয়ায় ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টা দুর্বল হয়ে যেতে পারে। গতকাল ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয় ৯ হাজার ২৮৩ জন। এর আগের দিন আক্রান্তের সংখ্যা ছিল সাত হাজার ৫৭৯। দেশটিতে বর্তমানে করোনার পরীক্ষা করা হচ্ছে দৈনিক সক্ষমতার অর্ধেক। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ ভূষণ বলেছেন, পর্যাপ্ত পরীক্ষা না হওয়ার কারণে সংক্রমণের বিস্তারের প্রকৃত মাত্রা নির্ধারণ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় এক দিনে আক্রান্তের সংখ্যা চার হাজার ছাড়িয়েছে। করোনাভাইরাসের ডেল্টা ভেরিয়েন্টের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর দেশটিতে কভিড রোগীর সংখ্যা এক দিনে এটাই সর্বোচ্চ। এদিকে নিউজিল্যান্ড গতকাল বলেছে, তারা বিদেশি ভ্রমণকারীদের আরো কমপক্ষে পাঁচ মাস ঢুকতে দেবে না। সূত্র : বিবিসি।



সাতদিনের সেরা