kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

কপ-২৬ সম্মেলনে বরিস জনসনের সাবধানবাণী

ব্যর্থ হলে পরের প্রজন্ম ক্ষমা করবে না

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্যর্থ হলে পরের প্রজন্ম ক্ষমা করবে না

সম্মেলনে বরিস জনসন

কপ-২৬ শীর্ষক জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলন কোনোভাবেই ব্যর্থ হওয়া যাবে না, শুরুতেই সেই বার্তা দিলেন আয়োজক যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোয় গতকাল সোমবার জলবায়ু সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের বক্তব্য উপস্থাপন শুরু করেন বিশ্বনেতারা। ‘১২টা বাজতে আর মাত্র এক মিনিট বাকি। আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে এখনই’, এই নাটকীয় কথা দিয়ে সম্মেলন শুরু করেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী জনসন।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বনেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘গ্লাসগোর কপ-২৬-এ আমরা যদি জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কয়লা, গাড়ি, অর্থ আর গাছ নিয়ে বাস্তবমুখী কিছু করতে না পারি, তবে বিশ্বের ক্রোধ ও ধৈর্যচ্যুতি কোনোভাবেই ঠেকানো যাবে না। ’

জলবায়ু পরিবর্তন রোধে এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ কতটা জরুরি, তা তুলে ধরতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা তালগোল পাকিয়ে ফেললে কিংবা গুরুত্বপূর্ণ সময়টা কাজে লাগাতে না পারলে অনাগত শিশুরা ভবিষ্যতে আমাদের ক্ষমা করবে না। তারা জানবে যে গ্লাসগো ছিল ঐতিহাসিক বাঁক বদলের মুহূর্ত, যখন ইতিহাস বাঁক বদল করতে ব্যর্থ হয়েছে। যে তিক্ততা ও তীব্র অসন্তোষ আজকের জলবায়ু আন্দোলনকর্মীদের গ্রাস করেছে, সেই একই অনুভূতি নিয়ে পরবর্তী প্রজন্ম আমাদের মূল্যায়ন করবে এবং তাদের মূল্যায়ন ঠিকই হবে। ’

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, ‘বলার সময় এসেছে—যথেষ্ট হয়েছে। জীববৈচিত্র্যের প্রতি নির্মমতা যথেষ্ট হয়েছে। কার্বন দিয়ে নিজেদের হত্যা করা যথেষ্ট হয়েছে। প্রকৃতিকে শৌচাগারের মতো ব্যবহার করা যথেষ্ট হয়েছে। পুড়িয়ে ফেলা, ফুটা করা, খোঁড়াখুঁড়ি করে আরো গভীরে যাওয়া যথেষ্ট হয়েছে। আমরা তো নিজেদের খবর খুঁড়ছি। ’ জীবাশ্ম জ্বালানির প্রতি লোভ মানবসভ্যতাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।  

বিখ্যাত ব্রিটিশ প্রকৃতিবিদ স্যার ডেভিড অ্যাটেনবরো বলেন, ‘আমরা সমস্যায় পড়ে গিয়েছি। যে স্থিতাবস্থার ওপর ভরসা করে আমরা টিকে আছি, তা ভেঙে পড়ছে। ’

উল্লেখ্য, বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কার্বন নিঃসরণকারীর অবস্থানে থাকা দেশ চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এ সম্মেলনে সশরীরে যোগ দিচ্ছেন না। এ ছাড়া তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান ইতালির রোমে জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিয়ে গ্লাসগোয় রওনা হওয়ার পরিবর্তে দেশে চলে গেছেন। তবে রবিবার রোমে জি-২০ সম্মেলনে জীবাশ্ম জ্বালানি কয়লার ওপর বিধি-নিষেধ বিষয়ে সম্মেলনের খসড়া প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছিল তুরস্ক। শেষ পর্যন্ত দেশটি তাদের বিরোধিতা প্রত্যাহার করে নেয়।

সূত্র : এএফপি, বিবিসি।



সাতদিনের সেরা