kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে নতুন ইসরায়েলি বসতি

রীতি ভেঙে যুক্তরাষ্ট্রের ‘তীব্র বিরোধিতা’

গভীরভাবে উদ্বিগ্ন জো বাইডেন প্রশাসন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রীতি ভেঙে যুক্তরাষ্ট্রের ‘তীব্র বিরোধিতা’

অধিকৃত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েলি বসতি সম্প্রসারণ পরিকল্পনার ‘তীব্র বিরোধিতা’ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। জো বাইডেন প্রশাসন বলছে, ইসরায়েলের নতুন বসতি স্থাপন কার্যক্রম দ্বিরাষ্ট্র সমাধানের পথ নষ্ট করবে। বসতি স্থাপনসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ইসরায়েলের তৎপরতা নিয়ে তাদের প্রধান পশ্চিমা মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের নিন্দা বা সমালোচনা বিরল ঘটনা। বলা হচ্ছে, আগের মেয়াদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সময়ের নীতি থেকে এটি বড় ব্যত্যয়।

ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে নতুন ইসরায়েলি বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনার তথ্য গত রবিবার সামনে আসে। এদিন ইসরায়েলের অবকাঠামো নির্মাণ ও আবাসন বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানায়, পশ্চিম তীরে ইহুদিদের জন্য নতুন এক হাজার ৩৫৫টি বাড়ি নির্মাণের লক্ষ্যে দরপত্র আহবান করা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার প্রতিক্রিয়া জানায় যুক্তরাষ্ট্র। এদিন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, ‘ইসরায়েলের কয়েক হাজার বাড়ি নির্মাণের কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’ এসব বসতির অনেকগুলো পশ্চিম তীরে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘সেই সঙ্গে পশ্চিম তীরে কয়েকটি বসতিতে এক হাজার ৩০০ ইউনিট বাড়ি নির্মাণ নিয়েও আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা বসতি সম্প্রসারণের তীব্র বিরোধিতা করি। অস্থিতিশীলতা কমানো এবং শান্তি নিশ্চিত করার সঙ্গে বসতি স্থাপন সম্পূর্ণ অসংগতিপূর্ণ।’

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসরায়েলের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের বিষয়ে রাখঢাক ছাড়াই কথা বলতেন। কাজেও এর প্রমাণ দিয়েছেন। তাঁর আমলেই মার্কিন প্রশাসন ফিলিস্তিনিদের দাবি উপেক্ষা করে পূর্ব জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানীর স্বীকৃতি দেয়।

বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন নতুন বসতি স্থাপনের সমালোচনা করলেও দেশটিকে সব ধরনের সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছে। অনেক মার্কিনির দাবি উপেক্ষা করে বাইডেন বলেছেন, ইসরায়েলের নিরাপত্তার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকার ‘লৌহকঠিন’।

সূত্র : এএফপি, আলজাজিরা।



সাতদিনের সেরা