kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সংক্ষিপ্ত

তাইওয়ান পরিস্থিতি ‘জটিল ও ভয়াবহ’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তাইওয়ানের বর্তমান পরিস্থিতিকে ‘জটিল ও ভয়াবহ’ আখ্যা দিয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং। তাইওয়ানের বিরোধীদলীয় নেতা এরিক চুকে উদ্দেশ করে লেখা চিঠিতে গতকাল রবিবার তিনি এ কথা বলেন। তাইওয়ানের বর্তমান পার্লামেন্টের বিরোধী দল কুওমিনতাংয়ের (কেএমটি) নতুন নির্বাচিত হয়েছেন এরিক চু। গত শনিবার তাঁকে দলনেতা করে কেএমটি। বেইজিংয়ের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী এরিক চু দলের শীর্ষনেতা নির্বাচিত হওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন জানিয়ে গতকাল চিঠি লেখেন চিনপিং। গতকালের চিঠিতে চিনপিং বলেন, ‘চীনা জাতির সব ছেলে-মেয়েকে একসঙ্গে এক হৃদয়ে কাজ করতে হবে এবং এগিয়ে যেতে হবে।’ তিনি আশা প্রকাশ করেন, উভয় পক্ষই ‘তাইওয়ান প্রণালিতে শান্তি প্রতিষ্ঠা, জাতীয় পুনর্মিলন ও পুনরুজ্জীবনে’ সহযোগিতা করবে। চিনপিংয়ের চিঠির জবাবে তাইওয়ান ও চীনের মূল ভূখণ্ডের বাসিন্দাদের ‘হলুদ সম্রাটের সন্তান’ তথা হান সম্প্রদায়ের সদস্য আখ্যা দেন এরিক চু। ‘হলুদ সম্রাট’ চীনাদের ঐতিহ্যগত সার্বভৌম শাসক। তাইপে-বেইজিং উত্তেজনার জন্য তাইওয়ানে ক্ষমতাসীন ডেমোক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টিকে (ডিপিপি) দায়ী করে চু বলেন, তিনি আশা করেন, চীনের সঙ্গে অভিন্ন স্বার্থ খুঁজে নিয়ে পরস্পরের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা সম্ভব হবে, পারস্পরিক আস্থা ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে অগ্রগতি হবে, বিনিময় ও সহযোগিতা শক্তিশালী হবে এবং এসবের মধ্য দিয়ে তাইওয়ান প্রণালির দুই পাশের দুই ভূখণ্ডের শান্তিপূর্ণ সম্পর্কের অগ্রগতি অব্যাহত থাকবে। তাইওয়ানের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট এরিক চু প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়েছেন। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি সাই ইং ওয়েনের কাছে বিপুল ভোটে হেরে যান। প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েন কট্টর চীনবিরোধী হওয়ায় দুই ভূখণ্ডের সম্পর্ক অত্যন্ত উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তার ওপর বিরোধী দল কেএমটির সঙ্গেও বেইজিংয়ের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। জনি চিয়াং ১৭ মাস কেএমটির নেতা থাকা অবস্থায় বেইজিংয়ের সঙ্গে দলটির সম্পর্কে এমন অচলাবস্থা তৈরি হয়। জনি চিয়াং ‘এক চীন’ নীতির প্রতি যথেষ্ট আন্তরিক ছিলেন না এবং তিনি বেইজিংয়ের প্রতি ‘যথেষ্ট প্রতিশ্রুতিবদ্ধ’ ছিলেন না, এমন অভিযোগে সম্পর্ক শীতল হয়ে যায়। এরিক চু ওই নেতার স্থলাভিষিক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বেইজিংয়ের সঙ্গে স্থবির সম্পর্কে গতি আনার ঘোষণা দিয়েছেন। এরিক চু তাইওয়ানের রাজধানী নিউ তাইপের মেয়র ছিলেন একসময়। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।



সাতদিনের সেরা