kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

মার্কেলের উত্তরসূরির দৌড়ে এগিয়ে শলৎস

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মার্কেলের উত্তরসূরির দৌড়ে এগিয়ে শলৎস

অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের ১৬ বছরের শাসনামলের ইতি ঘটতে যাচ্ছে জার্মানিতে। তাঁর উত্তরসূরি বেছে নিতে গতকাল রবিবার দেশটির সাধারণ নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন প্রায় ছয় কোটি মানুষ। প্রাথমিক ফলে দেখা গেছে, মার্কেলের রক্ষণশীল দল—সিডিইউয়ের চেয়ে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটস দল অল্প ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, এই ভোটের মাধ্যমে যে-ই ক্ষমতায় আসুক না কেন, মার্কেলের মতো জনপ্রিয়তা অর্জন করা তাঁর জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে। কারণ ১৬ বছরের নেতৃত্বে জার্মানির অর্থনৈতিক অবয়ব অনেকটাই বদলে দিয়েছেন মার্কেল। এমন কথাও প্রচলিত আছে যে, মার্কেল এতটাই জনপ্রিয় যে দেশটির অনেক তরুণ ভোটার নাকি অন্য কোনো চ্যান্সেলরের নামই মনে করতে পারেন না।

এবারের চ্যান্সেলরের দৌড়ে রয়েছেন মার্কেলের দল সিডিইউ থেকে মনোনীত প্রার্থী আরমিন লাশেট, সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটস দলের নেতা ওলাফ শলৎস এবং গ্রিন পার্টির আনালেনা বেয়ারবক। তবে শেষ হাসি কে হাসবেন, ভোটের আগের জনমত জরিপে তার স্পষ্ট কোনো আভাস মেলেনি। তবে সব জরিপই এটা নিশ্চিত করেছে, ভোটে যে দলই এগিয়ে থাকুক না কেন, সরকার গড়তে অবশ্যই অন্য দলের সমর্থন প্রয়োজন পড়বে।

ভোটগ্রহণ শুরু হয় সকাল ৮টা থেকে; শেষ হয় সন্ধ্যা ৬টায়। এই ভোটের মাধ্যমে গঠিত হবে জার্মান পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ—বুন্দেসটাগ। জার্মানির রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে বাংলাদেশ সময় গতকাল রাত ১২টার দিকে প্রাথমিক ফল ঘোষণা করা হয়। তাতে দেখা গেছে, ওলাফ শলৎস ২৫.৬ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। অন্যদিকে ২৪.৭ শতাংশ ভোট পেয়েছেন মার্কেলের দলের প্রার্থী লাশেট।

জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলের অনুমান, ওলাফ শলৎস ও আরমিন লাশেটের প্রাপ্ত আসনসংখ্যার মধ্যে ব্যবধান কম হলে উভয় পক্ষকেই বাকি দলগুলোর কাছে ধরনা দিতে হবে।

বুন্দেসটাগের ন্যূনতম আসন ৫৯৮টি। জার্মান নির্বাচন পদ্ধতির কারণে এই সংখ্যা বাড়তে পারে। কোনো দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে কি না, তা গতকাল রাতেই স্পষ্ট হয়ে যায়। তবে সরকারে কে যাচ্ছে, তা স্পষ্ট হতে আরো খানিকটা সময় লাগবে।

ভোটের আগে ভোটারদের সতর্ক করে মার্কেল বলেন, ‘জার্মানির প্রয়োজন স্থিতিশীলতা। আর তরুণ জার্মানদের দরকার সুন্দর ভবিষ্যৎ। সুতরাং ক্ষমতায় কে থাকবে, সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

জার্মানির ভোটাররা দুটি ব্যালটে ভোট দেন। একটির মাধ্যমে নির্বাচনী আসনের প্রার্থী বেছে নেন। আর দ্বিতীয়টি ব্যবহার করেন পছন্দের দল নির্বাচনে। প্রার্থী এবং দল ভিন্ন হলে সমস্যা নেই। প্রথম ভোটের ভিত্তিতে ২৯৯টি আসনে প্রার্থীরা সরাসরি নির্বাচিত হবেন। আর দ্বিতীয় ব্যালটে যে দল যত শতাংশ সমর্থন পায়, সেই অনুপাতে বাকি আসনগুলোতে প্রার্থী নির্বাচিত হয়। বিশ্লেষকরা বলছেন,  কয়েকটি ইস্যু এবার ভোটে প্রভাব ফেলবে। জলবায়ু ইস্যুর প্রভাব যে সবচেয়ে বেশি থাকবে, তাতে সন্দেহ নেই। সূত্র : বিবিসি।



সাতদিনের সেরা