kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাশিয়ায় নির্বাচন

পুতিনের দল জয়ী, কারচুপির অভিযোগ বিরোধীদের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাশিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল ইউনাইটেড রাশিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠতা ধরে রেখেছে। গতকাল সোমবার পর্যন্ত ৮৫ শতাংশ ভোট গণনা করা হয়। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, পার্লামেন্ট দুমায় দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যাচ্ছে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ইউনাইটেড রাশিয়া। 

এদিকে নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ করেছে বিরোধী দলগুলো। রাশিয়ার পুতিনবিরোধী কারান্তরীণ নেতা আলেক্সাই নাভালনির মুখপাত্র কিরা ইয়ারমাশ বলেন, ‘এটি সত্যিই অবিশ্বাস্য। ২০১১ সালের অনুভূতি আমার মনে পড়ে, তখন তারা নির্বাচনকে লুট করেছিল। একই ঘটনা এবারও ঘটল।’

 

রাশিয়ার কমিউনিস্টরা বিভিন্ন ইস্যুতে পুতিনের সমর্থক। অথচ কমিউনিস্ট নেতা গেনাডি জিউগানভ নির্বাচনে ব্যালট কারচুপির অভিযোগ করেছেন।

এদিকে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ রাশিয়ায় নির্বাচনের অতীত ও বর্তমানের ‘প্রতিযোগিতা’, ‘স্বচ্ছতা’ ও ‘সততা’র প্রশংসা করেন। সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্পষ্ট হয়েছে যে ইউনাইটেড রাশিয়াই ভোটারদের প্রথম পছন্দ।’

গত শুক্রবার শুরু হওয়া তিন দফার ভোটগ্রহণ শেষ হয় রবিবার। গতকাল পর্যন্ত ভোট গণনায় দেখা যায়, পার্লামেন্ট নির্বাচনে ইউনাইটেড রাশিয়া পেয়েছে ৪৯.৭৬ শতাংশ এবং কমিউনিস্টরা পেয়েছে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৯.৬১ শতাংশ। পার্লামেন্টের ৪৫০ আসনের ৩১৫টি দখল করেছে ইউনাইটেড রাশিয়া, যা গতবারের তুলনায় ১৯টি কম। ২০১৬ সালের নির্বাচনে ইউনাইটেড রাশিয়া পেয়েছিল ৫৪.২ শতাংশ এবং কমিউনিস্টরা পেয়েছিল ১৩.৩ শতাংশ ভোট। অর্থাৎ ক্ষমতাসীনদের সমর্থন কমার বিপরীতে কমিউনিস্টদের প্রতি সমর্থন বেড়েছে।

এবারের নির্বাচনের আগে ধারণা করা হচ্ছিল, আলেক্সাই নাভালনি পুতিনকে নির্বাচনে চ্যালেঞ্জ জানাবেন। কিন্তু নির্বাচনের আগে নাভালনির সংগঠনকে চরমপন্থী আখ্যা দিয়ে নিষিদ্ধ করা হয় এবং তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়। ফলে নির্বাচনে পুতিনের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী অবশিষ্ট থাকেনি।

বিশ্লেষকরা বলছেন, পুতিন প্রশাসনের দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে নাভালনির প্রতিবাদ নির্বাচনে প্রভাব ফেলেছে। পুতিনের দলের ওপর সমর্থন কমে যাওয়া এরই প্রমাণ। 

রাশিয়ার নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ নতুন নয়। গত দশকে অনুষ্ঠিত দুটি নির্বাচনেই ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। ২০১১ সালের নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিবাদ করে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন নাভালনি। ২০১৬ সালেও ব্যাপক সমালোচনা হয় নির্বাচন নিয়ে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।



সাতদিনের সেরা