kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সংক্ষিপ্ত

‘সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষায় ব্যর্থ পাকিস্তান’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জাতিসংঘের মঞ্চে পাকিস্তান এবং অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) কড়া সমালোচনা করেছে ভারত। কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে ‘ব্যর্থ রাষ্ট্র’ আখ্যা দেওয়ার পাশাপাশি ওআইসি সম্পর্কে বলা হয়, ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার নিয়ে কথা বলার নৈতিক অধিকার নেই ওই জোটের। জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের ৪৮তম অধিবেশনে পাকিস্তান ও ওআইসির তীব্র সমালোচনা করেন ভারতের প্রতিনিধি। জেনেভায় ভারতের স্থায়ী মিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি পবন বাঢ়ে এসব সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের মঞ্চের অপব্যবহার করে ধারাবাহিকভাবে ভারতের বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং দূষিত প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান।’ জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের প্রধান মিশেল ব্যাশেলেটে ভারতের একাধিক কড়া আইনের কথা উল্লেখ করে ভারতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলেন। এর উত্তর দিতে গিয়ে, পাকিস্তান এবং মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসিকে টেনে আনেন ভারতের প্রতিনিধি। তিনি বলেন, ‘দেশের ভেতরে এবং অধিকৃত এলাকায় যেভাবে পাকিস্তান সরকার গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা থেকে নজর ঘোরানোর মরিয়া চেষ্টা করে যাচ্ছে, তা কারো নজর এড়ায়নি।’ তিনি আরো বলেন, ‘ভারত শুধু বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের অধিকারী নয়, বরং সেই গণতন্ত্র অত্যন্ত কার্যকর ও স্পন্দনশীল। অন্যদিকে পাকিস্তান হচ্ছে, সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্রবিন্দু এবং জঘন্যতম মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী। সেই পাকিস্তানের কাছ থেকে ভারতের শেখার কিছু নেই।’ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানাবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ করে ভারতের ওই প্রতিনিধি জানান, সেখানকার সংখ্যালঘু নারীদের যেভাবে অপরাধের শিকার হতে হয়, তাতে তাঁর দেশ উদ্বিগ্ন। তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান শিখ, হিন্দু, খ্রিস্টান,  আহমাদিয়াসহ অন্য সব সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধিকার রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছে। ওই সব সম্প্রদায়ের হাজার হাজার নারী ও মেয়ে অপহরণ, বলপূর্বক বিয়ে ও ধর্মান্তরের শিকার হয়।’ যেকোনো ধরনের ভিন্নমত দমনে এবং নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখার স্বার্থে গুম, খুন, অপহরণের মতো ঘটনা ঘটানো হয় পাকিস্তানে, এমন অভিযোগও করেন বাঢ়ে। ওআইসি কাশ্মীর প্রসঙ্গ তোলায় ক্ষোভ প্রকাশ করে ভারতের প্রতিনিধি বলেন, ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে কথা বলার কোনো অধিকার ওআইসির নেই।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।



সাতদিনের সেরা