kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ভারতে শনাক্ত নামল ১.৬৯ শতাংশে

সিডনিতে কারফিউ প্রত্যাহার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভারতে শনাক্ত নামল ১.৬৯ শতাংশে

করোনার অতি সংক্রামক ধরন ডেল্টায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ভারতের করোনা পরিস্থিতি তিন মাস ধরে স্থিতিশীল আছে। দৈনিক শনাক্ত বাড়তে বাড়তে চার লাখের কোঠায় পৌঁছানো দেশটিতে এখন দিনে ৩০ হাজারের নিচে আক্রান্ত ধরা পড়ছে। সর্বশেষ গতকাল সকালে দৈনিক শনাক্ত হার ছিল ১.৬৯ শতাংশ। এই হার সর্বশেষ ১৬ দিনের মধ্যে ৩ শতাংশ কম।

দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় জনবহুল দেশটিতে ১৬ লাখ ১০ হাজার ৮২৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়ে। তাতে প্রাণঘাতী ভাইরাসটি ধরা পড়ে মাত্র ২৭ হাজার ১৭৬ জনের। অর্থাৎ শনাক্তের হার ১.৬৯ শতাংশ। একই সময়ে সেখানে করোনাজনিত মৃত্যু হয়েছে ২৮৪ জনের। তাতে করে মোট প্রাণহানির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে চার লাখ ৪৩ হাজার ৪৯৭ জনের।

এখন পর্যন্ত প্রতিবেশী দেশটিতে শনাক্ত সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন কোটি ৩৩ লাখ ১৬ হাজার ৭৫৫। এর মধ্যে সেরে উঠেছে তিন কোটি ২৫ লাখ ২২ হাজার ১৭১ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা তিন লাখ ৫১ হাজার ৮৭ জন (১.০৫%)।

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলার পর ভারতে টিকাদান কর্মসূচিতে বেশ জোর দেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে ৭৫.৮৯ কোটি ডোজ প্রতিষেধক দেওয়া হয়েছে।

ফুচিয়ানে নতুন আক্রান্ত অর্ধশত

চীনের ফুচিয়ানে গত মঙ্গলবার আরো ৫০ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। এতে গত পাঁচ দিনে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশে আক্রান্ত হলো ১৫২ জন।

এক বছরের মধ্যে গত জুলাইয়ে সংক্রমণে প্রাদুর্ভাব দেখে বেইজিং। গণপরীক্ষা ও ব্যাপক কড়াকড়ির মাধ্যমে এক মাসের মধ্যেই সেই পরিস্থিতির উত্তরণ হয়। এরপর গত শুক্রবার ফুচিয়ান প্রদেশের ফেংচি শহরে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। নিয়মিত পরীক্ষার অংশ হিসেবে সেখানকার দুই ছাত্রের শরীরে ভাইরাস ধরা পড়ে। এর পর থেকে সংক্রমণে উল্লম্ফন ঘটেছে।

সিডনিতে কারফিউ প্রত্যাহার

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে গতকাল কারফিউ প্রত্যাহার করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্থিতিশীল এবং টিকা দেওয়ার গতি বাড়ায় কারফিউ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

সিডনি করোনার হটস্পট হয়ে ওঠায় তিন মাস ধরে এখানে কঠোর লকডাউন চলে এবং এ কারণে জীবনযাত্রা বলতে গেলে অচল হয়ে পড়ে। পরিস্থিতি স্থিতিশীল হওয়ায় রাজ্য কর্তৃপক্ষ বিধি-নিষেধও শিথিল করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রধানমন্ত্রী গ্লেডিস বেরেজিকলিয়ান বলেছেন, ‘ভাইরাসের তীব্র সংক্রমিত এলাকাগুলোতে জারি থাকা কারফিউ বুধবার থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। কয়েক দিন ধরে আমরা সংক্রমণ পরিস্থিতি স্থিতিশীল দেখতে পাচ্ছি।’ তিনি বাসিন্দাদের সতর্ক থাকতে এবং ঘরে থাকার আদেশ মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন।

সূত্র : এএফপি, বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড।



সাতদিনের সেরা