kalerkantho

বুধবার । ৭ আশ্বিন ১৪২৮। ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৪ সফর ১৪৪৩

অসুস্থ শরীরেই আদালতে সু চি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অসুস্থ শরীরেই আদালতে সু চি

উসকানি দেওয়া ও কভিড নিষেধাজ্ঞা না মানার অভিযোগে মিয়ানমারের জান্তার করা মামলার শুনানির জন্য গতকাল মঙ্গলবার আদালতে হাজির হন অং সান সু চি। গত ফেব্রুয়ারিতে একটি সামরিক অভ্যুত্থানে মাধ্যমে তাঁকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় এবং তাঁকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

আইনজীবীদলের প্রধান খিন মাউং জাউ গতকাল শুনানির আগে সু চির সঙ্গে দেখা করেন। মং জাও জানান, গতকালও সু চি কিছুটা অসুস্থ বোধ করছিলেন। গত সোমবার স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণে শুনানিতে হাজির হতে পারেননি এই নেত্রী। তাঁর আইনজীবী মিন মিন সোয়ে জানিয়েছেন, মাথা ব্যথা সংক্রান্ত কারণে সু চি আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন। ৭৬ বছর বয়সী সু চি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি। তবে দীর্ঘদিন গাড়িতে ওঠার অভ্যাস না থাকায় তিনি অসুস্থ বোধ করছিলেন। সোয়ে বলেন, ‘এটা গুরুতর কোনো অসুস্থতা নয়। তিনি গাড়িতে ওঠার বিষয়ে অসুস্থ বোধ করছিলেন। এই অনুভূতিটা তিনি সহ্য করতে পারছিলেন না। সে জন্য তিনি বিশ্রাম নিতে চান বলে আমাদের জানিয়েছেন।’

শান্তিতে নোবেলজয়ী এই নেত্রী গত তিন দশকের প্রায় অর্ধেকটা সময় আটক অবস্থায় কাটিয়েছেন। স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে অহিংস সংগ্রামের জন্য তাঁকে বিভিন্ন ধরনের বন্দিত্বের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। বাইরের জগতের সঙ্গে সু চির যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হলো তাঁর আইনজীবীরা। যদিও তাঁরা সু চির সঙ্গে দেখা করার খুব একটা সুযোগ পান না। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের রায়ে তাঁকে আরো এক দশকের বেশি সময় কারাগারে কাটাতে হতে পারে। তবে সু চির বিরুদ্ধে আনা সব ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তাঁর আইনজীবীরা। এদিকে সু চির বিচার কার্যক্রমের কোনো তথ্য দেশটির সাংবাদিকদের দেওয়া হচ্ছে না। আর কেউ তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করলে তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে।

গত জুলাইয়ে দুইজন সাক্ষীর সাক্ষ্য দেওয়া কথা ছিল, কিন্তু তাঁরা দুজনই করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় সে শুনানি হয়নি। গত দুই মাস মিয়ানমারে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় বন্ধ ছিল আদালতের কার্যক্রম। সূত্র : এএফপি।



সাতদিনের সেরা