kalerkantho

বুধবার । ৭ আশ্বিন ১৪২৮। ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৪ সফর ১৪৪৩

বাড়ছে দাবদাহের স্থায়িত্ব

পরিবেশ নিয়ে চরম উদ্বেগে ৬০ শতাংশ তরুণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাড়ছে দাবদাহের স্থায়িত্ব

বৈশ্বিক উষ্ণায়নের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে উষ্ণতম দিনের সংখ্যা। উনিশ শ আশির দশকের তুলনায় পরবর্তী দশকে বার্ষিক উষ্ণতম দিনের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে এমন এলাকার সংখ্যা, যেখানে রেকর্ড তাপমাত্রায় ভুগছে মানুষ। শুধু তা-ই নয়, উষ্ণায়নসহ পরিবেশের অন্যান্য বিপর্যয় তরুণসমাজকে শারীরিক ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তুলছে।

বিবিসি গতকাল মঙ্গলবার এক বিশ্লেষণমূলক প্রতিবেদনে জানায়, ১৯৮০ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে প্রতিবছর গড়ে ১৪ দিন ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রায় ভুগতে হয়েছে বিশ্ববাসীকে। ২০১০ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে প্রতিবছর এমন দিনের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২৬ দিনে। একই সময়কালে ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা এর বেশি তাপমাত্রার স্থায়িত্বও বেড়েছে। এমন গরমে বছরে বাড়তি দুই সপ্তাহ করে ভুগতে হচ্ছে মানুষকে।

৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রা সাধারণত মধ্যপ্রাচ্য ও উপসাগরীয় অঞ্চলে দেখা যায়। কিন্তু গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ কমাতে না পারলে ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকাও ওই তাপমাত্রার শিকার হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন পরিবেশবিজ্ঞানীরা। এই বাড়তি তাপমাত্রা মানুষ ও প্রকৃতিকে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত তো করবেই, সেই সঙ্গে ভবন, সড়ক ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় বড় ধরনের সংকট তৈরি করবে।

আতঙ্কিত তরুণ প্রজন্ম : বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের জেরে মানুষ ও প্রকৃতি যেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তাতে তরুণসমাজের মধ্যে প্রচণ্ড আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

ইংল্যান্ডের বাথ ইউনিভার্সিটির নেতৃত্বে এবং এভাজ শীর্ষক গবেষণা ও প্রচার সংস্থার অর্থায়নে বিশ্বের ১০টি দেশের ১০ হাজার তরুণকে জরিপের আওতায় আনা হয়। ১৬ থেকে ২৫ বছর বয়সী এই সমাজের ৬০ শতাংশ জানায়, তারা জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে খুব অথবা চরম উদ্বিগ্ন। জরিপে অংশ নেওয়া তরুণদের ৪৫ শতাংশের বেশি জানায়, জলবায়ু পরিবর্তন তাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব ফেলছে। চার ভাগের তিন ভাগ জানিয়েছে, তারা ভবিষ্যৎ নিয়ে আতঙ্কিত। তিন ভাগের দুই ভাগ জানিয়েছে, তাদের মধ্যে ভয়, উদ্বেগ ও দুঃখ কাজ করছে। ৫৬ শতাংশের বেশি তরুণ মনে করেন, মানবতার বিপর্যয় অবশ্যম্ভাবী।

গবেষণা প্রতিবেদনটির লেখকরা জানান, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে তরুণসমাজ আতঙ্কিত তো বটেই, বিপর্যয় মোকাবেলায় নিজ নিজ দেশের সরকারের ব্যর্থতা তাদের আরো উদ্বিগ্ন করে তুলছে। সরকারের ভূমিকায় তারা নিজেদের প্রতারিত ও উপেক্ষিত মনে করছে।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় সরকারের ব্যর্থতাকে মানবাধিকার আইনে নিষ্ঠুরতা হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা যায় বলে মনে করেন গবেষণা প্রতিবেদনটির লেখকরা। এর কারণ ব্যাখ্যায় তাঁরা জানান, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে আতঙ্কের কারণে তরুণরা যে মানসিক চাপে ভুগছে, সেই চাপ তাদের মানসিক ও শারীরিক উভয় স্বাস্থ্যের ক্ষতি করছে। ওই আতঙ্ক তাদের মানসিকভাবে, সামাজিকভাবে ও শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে, এমন মন্তব্য করেন গবেষকরা। সূত্র : বিবিসি।



সাতদিনের সেরা