kalerkantho

বুধবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৮। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২১ সফর ১৪৪৩

বেসামরিক আফগানদের রক্তই বেশি ঝরছে

সরকারি বাহিনী হেরে গেলে বৈশ্বিক নিরাপত্তায় বিপর্যয় নেমে আসবে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেসামরিক আফগানদের রক্তই বেশি ঝরছে

জাতিসংঘ জানিয়েছে, আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনী ও তালেবানের মধ্যকার লড়াইয়ে বেসামরিক লোকজনই বেশি হতাহত হচ্ছে। সংস্থাটির হিসাবে, হেলমান্দ প্রদেশে ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ৪০ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এদিকে এক আফগান জেনারেল বলেছেন, তালেবান যোদ্ধাদের কাছে সরকারি বাহিনী হেরে গেলে তা বৈশ্বিক নিরাপত্তাকে হুমকিতে ফেলে দেবে।

মাস দুয়েক আগে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন ও ন্যাটো সেনা প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরু হয়। মূলত এর পর থেকেই তালেবানের দৌরাত্ম্য বেড়ে যায় দেশটিতে। তালেবানের সঙ্গে সরকারি সেনাদের লড়াইয়ের তীব্রতা বাড়তে থাকে। ধারণা করা হয়, আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক এলাকা বর্তমানে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বিশেষ করে সীমান্তবর্তী শহর ও প্রত্যন্ত এলাকাগুলো পুরো তাদের কবজায় চলে গেছে। আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ‘আচমকা’ সিদ্ধান্তকে দায়ী করেছেন প্রেসিডেন্ট প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। গত সোমবার পার্লামেন্টে তিনি স্বীকার করেন, ‘তিন মাস ধরে আমরা অপ্রত্যাশিত একটা পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। তার পরও আমাদের সেনারা ছয় মাসের মধ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার একটা রূপরেখা তৈরি করেছে।’

কয়েক দিন ধরে তিন প্রাদেশিক রাজধানীর দিকে অগ্রসর হচ্ছে তালেবান যোদ্ধারা। এগুলো হলো কান্দাহার, হেরাত ও হেলমান্দ প্রদেশের রাজধানী লস্করগাহ। এর মধ্যে লস্করগাহ শহরে তালেবান ও সরকারি বাহিনীর লড়াইয়ে ২৪ ঘণ্টায় ৪০ বেসামরিক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর দিয়েছে জাতিসংঘ। গতকাল আফগানিস্তানে জাতিসংঘের সহায়তা মিশন—ইউএনএমএর এক টুইটার বার্তায় বলা হয়, ‘তালেবানের স্থল অভিযান ও সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় বেসামরিক লোকজনকে সবচেয়ে বেশি খেসারত দিতে হচ্ছে।’

এর মধ্যে হেলমান্দ প্রদেশে তালেবানবিরোধী লড়াইয়ে সরকারি বাহিনীর নেতৃত্বে থাকা জেনারেল সামি সাদাত বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, কিছু জায়গায় সরকারি বাহিনী পিছু হটলেও তাঁর বিশ্বাস, তালেবানরা বেশিদিন টিকতে পারবে না। সেই সঙ্গে তিনি এটাও বলেন, অন্য ইসলামী গোষ্ঠীগুলো যোগ দেওয়ায় তালেবান শক্তিশালী হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে তালেবানের সঙ্গে লড়াইয়ে সরকারি বাহিনী যদি হেরে যায়, তবে আফগান মাটি ছাড়িয়ে বিশ্বের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে। এ কথার ব্যাখ্যায় জেনারেল সাদাত বলেন, তালেবান জয়ী হলে ছোট চরমপন্থী গোষ্ঠীগুলো আরো তৎপর হয়ে উঠবে এবং আমেরিকা-ইউরোপের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করবে। বিষয়টি বৈশ্বিক নিরাপত্তার ওপর বিপর্যয়কর প্রভাব ফেলবে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।