kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

চীনের তিন প্রদেশে ডেল্টার ছোবল

নানজিং বিমানবন্দরে শুরু হওয়া প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে না পারলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চীনের তিন প্রদেশে ডেল্টার ছোবল

নভেল করোনাভাইরাসের অতি সংক্রামক ধরন ডেল্টার গুচ্ছ সংক্রমণ ধরা পড়েছে চীনে। গত ২০ জুলাই নানজিং বিমানবন্দরের ৯ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মীর দেহে শনাক্ত হয় ডেল্টা ধরন। গতকাল পর্যন্ত দেশটির চিয়াংসু প্রদেশে ১৭১ জনের শরীরের এই ভেরিয়েন্টে ধরা পড়েছে। তা ছাড়া গত বুধবার সিচুয়ান প্রদেশে তিনজন ও বেইজিংয়ে একজন স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নানজিং বিমানবন্দরে শুরু হওয়া প্রাদুর্ভাবে এখনই পদক্ষেপ না নিলে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো চীনেও নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যাবে। এর আগে গত বছর ডিসেম্বরে চীনে একসঙ্গে দুই হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়।

চীনের স্বাস্থ্য কমিশন জানিয়েছে, গত বুধবার চীনে নতুন করে মোট ৪৯ জন কভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ২৫ জন বিদেশফেরত এবং ২৪ জন স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত রোগী। স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত রোগীদের ২০ জন চিয়াংসু প্রদেশের, সিচুয়ান প্রদেশের তিনজন এবং একজন বেইজিংয়ের।

কমিশন জানায়, একই দিন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ২৪ জন রোগী। তা ছাড়া এ পর্যন্ত চীনে বিদেশফেরত রোগীর মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সাত হাজার ৩৪২ জনে, যাদের মধ্যে ৬৩৩ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে। আর সন্দেহভাজন রোগী আছে পাঁচজন; হাসপাতাল ছেড়েছে ছয় হাজার ৭০৯ জন। চীনে বিদেশফেরত রোগীদের মধ্যে এখন পর্যন্ত কেউ মারা যায়নি।

থাইল্যান্ডে হাসপাতালে শয্যাসংকট

থাইল্যান্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সতর্ক করে জানিয়েছে, রাজধানী ব্যাংককের হাসপাতালে রোগীর চাপে শয্যাসংকট দেখা দিয়েছে। গতকাল দেশটিতে রেকর্ড ১৭ হাজার ৬৬৯ জন নতুন রোগী ও ১৬৫ মৃত্যু নথিবদ্ধ হয়েছে।

এদিকে ব্যাংককের একটি কার্গো ওয়্যারহাউসকে এক হাজার ৮০০ শয্যার কভিড হাসপাতালে পরিণত করেছেন স্বেচ্ছাসেবকরা। গত বুধবার ওই হাসপাতাল চালু করা হয়। এটি মূলত যেসব কভিড রোগীর তুলনামূলক কম উপসর্গ দেখা যায় তাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি নাজুক হওয়ার মধ্যে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সিডনিতে রেকর্ড শনাক্ত

অস্ট্রেলিযার বৃহৎ শহর সিডনিতে গতকাল সর্বোচ্চ ২৩৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মহামারি শুরু হওয়ার পর শহরটি ২৪ ঘণ্টায় এত রোগী এর আগে দেখেনি। এদিকে লকডাউনে কার্যকরে পুলিশের ক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে। শহরের আট হটস্পটের বাসিন্দারা সর্বোচ্চ পাঁচ কিলোমিটার দূরে যেতে পারে। জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বেরোলেও মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা জারি করা আছে। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স।



সাতদিনের সেরা