kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

‘কাবুল তালেবানের কবজায় যাবেই এমন নয়’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছাড়ার এক বছরের মধ্যে রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের কবজায় যাওয়ার আশঙ্কা থাকলেও তা ‘অবশ্যম্ভাবী’ নয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মার্কিন সেনারা চলে যাওয়ার পর আফগান নিরাপত্তা বাহিনী কিভাবে পরিস্থিতি সামলাবে, মূলত তার ওপরই সব কিছু নির্ভর করছে।

আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে মার্কিন সেনাদের আফগানিস্তান ছাড়ার কথা রয়েছে। নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, মার্কিন সেনারা না থাকলে আশরাফ ঘানি সরকারের দুর্বল নেতৃত্ব, দুর্নীতি ও জাতিগত বিবাদ-বিভাজনের কারণে রাজনীতির মাঠে তালেবান অনেক সুবিধা পাবে। এ ছাড়া আশরাফ ঘানির ‘ভঙ্গুর’ সরকার কত দিন ক্ষমতায় থাকতে পারবে, সেটাও আফগানিস্তানের নিরাপত্তার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে এরই মধ্যে ওয়াশিংটন পৌঁছেছেন আশরাফ ঘানি। আজ শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে তাঁর বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

গত বুধবার মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছাড়ার ছয় থেকে ১২ মাসের মধ্যে আফগান যোদ্ধারা রাজধানী কাবুল দখল করে নিতে পারে।

এমন আশঙ্কার বিষয়ে ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপের গবেষক অ্যান্ড্রু ওয়াটকিনস বলেন, ‘যত দ্রুতগতিতে আফগান যোদ্ধারা অনেক এলাকার দখল নিয়ে নিয়েছে, তা অস্বীকার করার উপায় নেই। কিন্তু কাবুলের নিয়ন্ত্রণ এক বছরের মধ্যে তাদের হাতে চলে যাওয়ার আশঙ্কা খুবই কম। তালেবান এমন কোনো সংগঠন নয় যে তাদের ঠেকানো যাবে না।’

আফগানিস্তানের ৪০০ জেলার মধ্যে কয়েক ডজনের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে। ওয়াটকিনস বলেন, ‘তালেবানের নিয়ন্ত্রণে থাকা বেশির ভাগ জেলাই প্রত্যন্ত। সামরিক কিংবা রাজনৈতিকভাবে এসব জেলা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। তারা অবশ্য বড় বড় শহরের আশপাশে নিজেদের শক্তি বাড়ানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু অদূর ভবিষ্যতে তারা কাবুল দখলের চেষ্টা করবে বলে মনে হয় না।’

মার্কিন সেনারা গত বছর থেকে তালেবানের ওপর বিমান হামলার ক্ষেত্রে আফগান বাহিনীকে আর কোনো সহায়তা দেয় না। মার্কিন সেনারা চলে যাওয়ার পর আফগান বাহিনীর বিমান হামলার সক্ষমতা আরো কমে যাবে।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও পেন্টাগনের সাবেক কর্মকর্তা কার্টার মালকাসিয়ান মনে করেন, ‘প্রাদেশিক রাজধানীগুলো এখনো হুমকির মুখে পড়েনি। সুতরাং তালেবান যোদ্ধারা এক বছরের কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেবে—এমন আশঙ্কা একেবারেই ক্ষীণ।’ তিনি আরো বলেন, ‘আপনি যদি দেখেন যে কান্দাহার কিংবা মাজার-ই-শরিফের মতো বড় বড় শহরের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে চলে যাচ্ছে, তখনই শুধু কাবুলের পতন নিয়ে দুশ্চিন্তা করা যেতে পারে।’

সূত্র : এএফপি।