kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

সংলাপ-সংঘাত দুটিরই প্রস্তুতি রাখবেন উন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সংলাপ বা সংঘাত উভয় পরিস্থিতির জন্য উত্তর কোরিয়ার অবশ্যই প্রস্তুত থাকা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। তবে উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের নীতি কেমন হয়, সেদিকে লক্ষ রেখে সংঘাতের প্রস্তুতিতেই বেশি জোর দেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইংয়ে ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে উন এ মন্তব্য করেন বলে জানায় রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ।

জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর তাঁর প্রশাসন সম্পর্কে এটাই উনের প্রথম মন্তব্য। তাঁর এই মন্তব্য যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার আলোচনার পথ উন্মুক্ত রাখার প্রথম ইঙ্গিত বলে মনে করেন পর্যবেক্ষকরা।

গত বৃহস্পতিবার উন নিজ দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে বাইডেন প্রশাসনের উত্তর কোরিয়া নীতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা এবং নিজের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেন। বৈঠকে তিনি নতুন মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে কাজের ‘উপযুক্ত কৌশল এবং কৌশলগত প্রতিরোধের’ বিস্তারিত পরিকল্পনার কথাও জানান।

কেসিএনএ জানায়, উন আলোচনা ও সংঘাত উভয়ের জন্য প্রস্তুত হওয়ার ওপর জোর দিয়েছেন। তবে আমাদের দেশের মর্যাদা রক্ষায় সংঘাতের জন্য পূর্ণ প্রস্তুতি রাখার ওপর তিনি বিশেষ জোর দিয়েছেন। উন আরো বলেছেন, ‘উত্তর কোরিয়া যেকোনো তৎপরতার বিরুদ্ধে তীব্র এবং তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দেখাবে এবং কোরীয় উপদ্বীপের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সর্বোচ্চ মনোযোগ দেবে।’

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক বরাবরই উত্তেজনার। পরমাণু অস্ত্র তৈরিসহ নানা বিষয়ে বিরোধের জেরে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার বেড়াজালে পরে উত্তর কোরিয়ার অর্থনীতি একেবারে তলানিতে। এর মধ্যেই আঘাত হেনেছে করোনাভাইরাস মহামারি। উন নিজেই তাঁর দেশে খাদ্য সংকটের কথা স্বীকার করেছেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট থাকাকালে তাঁর সঙ্গে উনের বিতণ্ডা যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল। এরপর দুই নেতা উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে সিঙ্গাপুর এবং ভিয়েতনামে বৈঠক করেন। তাতে যুদ্ধ পরিস্থিতি কেটে গেলেও দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়নে কোনো অগ্রগতি হয়নি।

নতুন মার্কিন প্রশাসনের দায়িত্ব গ্রহণের শুরুতে এর সঙ্গেও উত্তর কোরিয়ার সম্পর্কের উত্তেজনার আঁচ পাওয়া গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর এক বিবৃতিতে জো বাইডেন উত্তর কোরিয়াকে বিশ্ব নিরাপত্তার জন্য ‘গুরুতর হুমকি’ আখ্যা দেন। জবাবে উত্তর কোরিয়া থেকে বলা হয়, বাইডেনের ওই মন্তব্য উত্তর কোরিয়ার প্রতি তাদের ‘বৈরী নীতি অব্যাহত থাকার’ ইঙ্গিতই দিচ্ছে। সম্প্রতি বাইডেন প্রশাসন তাদের উত্তর কোরিয়া নীতি নিয়ে একটি পর্যালোচনা শেষ করেছে। এসংক্রান্ত বৈঠক শেষে মার্কিন কর্মকর্তারা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের চূড়ান্ত লক্ষ্য হলো কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করা। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স।



সাতদিনের সেরা