kalerkantho

সোমবার । ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২ আগস্ট ২০২১। ২২ জিলহজ ১৪৪২

বেলুনের জবাবে বোমা

গাজায় ফের ইসরায়েলের হামলা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেলুনের জবাবে বোমা

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ ভূখণ্ড গাজায় গতকাল বুধবার ফের বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। গত মাসে ১১ দিনের লড়াই শেষে অস্ত্রবিরতির পর গতকাল প্রথম হামলা হলো। ইসরায়েলে নতুন সরকার ক্ষমতা নেওয়ার পর গাজায় এটা প্রথম বিমান হামলাও বটে।

গত মঙ্গলবার পূর্ব জেরুজালেমে ইহুদিদের পতাকা শোভাযাত্রা ঘিরে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দেয় ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলের মধ্যে। ওই শোভাযাত্রার জবাব দেওয়া হবে বলে আগেই হুমকি দিয়ে আসছিল গাজা নিয়ন্ত্রণকারী হামাস। ওই শোভাযাত্রার পরদিনই গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলার ঘটনা ঘটল, যদিও হামাস কোনো হামলা চালায়নি। ইসরায়েলের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে, ফিলিস্তিনি এলাকা থেকে ‘বিস্ফোরক বেলুন’ ছোড়ার জবাবে এই হামলা চালানো হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের বরাত দিয়ে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী দাবি করে, গাজা থেকে পাঠানো বেলুন সীমান্তের কাছে ইসরায়েলিদের ক্ষেতগুলোয় কমপক্ষে ২০টি অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়েছে। এর জবাবে গাজা সিটি এবং দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর খান ইউনিসে হামাসের সশস্ত্র স্থাপনায় হামলা করেছে ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান। ইসরায়েলি বাহিনী ‘সব পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত আছে, গাজার ধারাবাহিক সন্ত্রাসী হামলা নস্যাৎ করতে প্রয়োজনে আবারও লড়াই শুরু করা হবে’, এমন মন্তব্যও করা হয়।

ইসরায়েলের হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে হামাসের মুখপাত্র বলেছেন, ফিলিস্তিনিরা তাদের সাহসী প্রতিরোধ চালিয়ে যাবে এবং জেরুজালেমের ওপর তাদের অধিকার ও পবিত্র স্থানগুলো রক্ষা করবে।

গাজায় বিমান হামলা চালানোর কয়েক ঘণ্টা আগে কয়েক হাজার ইসরায়েলি পতাকা হাতে জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে প্রবেশে করে এবং ইহুদিদের কাছে পবিত্র হিসেবে বিবেচিত পশ্চিম দেয়াল স্পর্শ করে। তাদের এই কর্মসূচিতে ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় ওঠে ফিলিস্তিনিদের মধ্যে। গত মঙ্গলবারের ওই শোভাযাত্রার আগেই হামাসের সম্ভাব্য রকেট হামলার আশঙ্কায় ইসরায়েল তাদের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা আয়রন ডোম প্রস্তুত রাখে। জেরুজালেমে রাত নামার পর শোভাযাত্রা শুরু হয়, কিন্তু হামাসের পক্ষ থেকে কোনো রকেট ছোড়া হয়নি।

১৯৬৭ সালে পূর্ব জেরুজালেম দখল করে নেওয়ার পর থেকে প্রতিবছর ‘জেরুজালেম দিবস’ পালন করে আসছে ইহুদিরা। দিবসটি উপলক্ষে পতাকা মিছিল করে তারা। এ বছর মে মাসের শুরুতে তা পালন করার কথা থাকলেও ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘর্ষের জেরে তা স্থগিত থাকে। আড়াই শতাধিক ফিলিস্তিনির প্রাণ যাওয়ার পর গত ২১ মে অস্ত্রবিরতির মধ্য দিয়ে তখনকার মতো শান্ত হয় ইসরায়েল। এর মধ্যে ঘটে ইসরায়েলের সরকার পরিবর্তনের ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর টানা এক যুগের শাসনের অবসান ঘটিয়ে গত রবিবার নতুন সরকার দায়িত্ব নেয়। ইসরায়েলে সরকার পরিবর্তন যেকোনো আশার আলো দেখাতে পারবে না, সেই আশঙ্কা আগেই জানিয়েছে ফিলিস্তিনিরা। নতুন সরকার আসার দুই দিনের মাথায় গাজায় ইসরায়েলি বিমান হামলা তাদের সেই আশঙ্কাকে সত্যি প্রমাণ করেছে বলে মনে করেন পর্যবেক্ষকরা।

শুধু গাজায় বিমান হামলার মধ্যে ইসরায়েলের তৎপরতা সীমাবদ্ধ থাকেনি। অন্য যেকোনো সময়ের মতো গতকালও বিক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনিদের ওপর চলে ধরপাকড়।

এ অবস্থায় সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে শান্ত থাকার আহবান  জানিয়েছেন জাতিসংঘের মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক দূত টর ওয়েনেসল্যান্ড। গত ২১ মে হওয়া ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধবিরতির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘সব পক্ষকে দায়িত্বশীল আচরণ করার এবং উসকানি এড়িয়ে চলার আহবান  জানাচ্ছি যেন পরিস্থিতি আবার সংঘর্ষের দিকে না যায়।’

সূত্র : এএফপি।



সাতদিনের সেরা