kalerkantho

রবিবার । ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮। ১ আগস্ট ২০২১। ২১ জিলহজ ১৪৪২

সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ দক্ষিণ আফ্রিকায়

ছয় কোটি মানুষের দেশ দক্ষিণ আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত সোয়া ১৭ লাখ মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ দক্ষিণ আফ্রিকায়

চলমান মহামারিতে বিশ্বের বহু দেশ যখন সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় ব্যস্ত, তখন দক্ষিণ আফ্রিকায় আছড়ে পড়েছে তৃতীয় ঢেউ। দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তর গত বৃহস্পতিবার বিবৃতি দিয়ে সরকারিভাবে বিষয়টি স্বীকার করেছে। বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, আগের তুলনায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৩০ শতাংশ।

দক্ষিণ আফ্রিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর কমিউনিকেবল ডিজিজ জানিয়েছে, করোনার তৃতীয় ঢেউ সে দেশে প্রবেশ করেছে। এরই মধ্যে মিনিস্টেরিয়াল অ্যাডভাইজরি কমিটি জানিয়েছে, সাত দিনের গড় সংক্রমণের (৫৯৫৯ জন) মাত্রা আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউয়ের কারণেই এমনটা হয়েছে। আগের ঢেউয়ের তুলনায় সংক্রমণ ৩০ শতাংশ বেশি হয়েছে।

বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাবে, ছয় কোটি মানুষের দেশ দক্ষিণ আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত সোয়া ১৭ লাখ মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছে সাড়ে ৫৭ হাজার মানুষ। বর্তমানে সেখানে প্রায় ৭২ হাজার মানুষ চিকিৎসাধীন।

যুক্তরাজ্যে ডেল্টা ধরনের প্রাদুর্ভাব

পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড (পিএইচই) জানিয়েছে, গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে ৪২ হাজার ৩২৩ জনের শরীরে ডেল্টা ধরন শনাক্ত হয়েছে। এক সপ্তাহ আগে এই সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৮৯২ জন। যুক্তরাজ্যজুড়েই এই ধরনটি খুবই দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। এলাকাভেদে সংক্রমণ দ্বিগুণ হচ্ছে ৪.৫ থেকে ১১.৫ দিনে।

পিএইচই আরো জানাচ্ছে, নতুন করে যারা করোনায় সংক্রমিত হচ্ছে, তাদের ৯০ শতাংশই ডেল্টায় আক্রান্ত। নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, আলফা বা কেন্ট ধরনের তুলনায় ডেল্টা ধরনে সংক্রমণের ঝুঁকি ৬০ শতাংশ বেশি।

মৃত্যুতে উল্লম্ফন মহারাষ্ট্রে

ভারতের বিহারে পর্যালোচিত মৃত্যুর তথ্য প্রকাশ করায় বৃহস্পতিবার দেশটিতে দৈনিক মৃত্যু ছয় হাজার ছাড়িয়েছিল। শুক্রবার এই সংখ্যা হয়েছে তিন হাজার ৪০৩। কর্ণাটক, কেরালা, তামিলনাড়ু—এই তিন রাজ্যে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যায় তেমন হেরফের না হলেও মহারাষ্ট্রে তা এক লাফে অনেকটা বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৯১৫ জনের।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আক্রান্ত হয়েছে ৯১ হাজার ৭০২ জন। তাতে করে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ৯২ লাখ ৭৪ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিবেশী দেশটিতে এখন চিকিৎসাধীন ১১ লাখ ২১ হাজার ৬৭১ জন।

সূত্র : ইভনিং স্ট্যান্ডার্ড, আইএএনএস।



সাতদিনের সেরা