kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১০ আষাঢ় ১৪২৮। ২৪ জুন ২০২১। ১২ জিলকদ ১৪৪২

গবেষণা প্রতিবেদন

সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা কাজে বাড়ে মৃত্যুঝুঁকি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা কাজে বাড়ে মৃত্যুঝুঁকি

সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে কাজ করলে মানুষের মৃত্যুঝুঁকি বাড়ে। এত বেশি কর্মঘণ্টার কারণে হৃদরোগ ও স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে বছরে লাখ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) ও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) যৌথ গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে।

গতকাল সোমবার এনভায়রনমেন্টাল ইন্টারন্যাশনাল শীর্ষক সাময়িকীতে গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, কর্মস্থলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অতিরিক্ত কাজ করার কারণে ২০১৬ সালে সাত লাখ ৪৫ হাজার মানুষ মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত রোগে ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। মৃত্যুর এ হার ২০০০ সালের তুলনায় বেড়েছে ৩০ শতাংশ।

১৯৪টি দেশ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে ২০০০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত গবেষণাটি পরিচালিত হয়। মহামারিতে এ পরিস্থিতি কেমন হয়েছে, তা গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত করা যায়নি। গবেষকদের মতে, করোনা পরিস্থিতিতে এই ঝুঁকি আরো বাড়তে পারে।

ডাব্লিউএইচওর পরিবেশ, জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক মারিয়া নাইরা গতকাল বলেন, ‘সপ্তাহে ৫৫ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে কর্মস্থলে কাজ করা গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ। এ অকালমৃত্যুর বিষয়ে সরকার, প্রতিষ্ঠানের মালিকপক্ষ ও কর্মীদের সচেতন হতে হবে।’

গবেষণায় দেখা গেছে, সপ্তাহে ৩৫ থেকে ৪০ ঘণ্টা কাজ করা ব্যক্তিদের তুলনায় ৫৫ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে কাজ করা লোকদের স্ট্রোকের ঝুঁকি ৩৫ শতাংশ বাড়তে পারে আর হৃদরোগে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়তে পারে ১৭ শতাংশ। কাজ সম্পর্কিত সব রোগের প্রায় এক-তৃতীয়াংশের জন্য দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করা দায়ী বলে গবেষণায় বলা হয়েছে। সূত্র : এএফপি।



সাতদিনের সেরা