kalerkantho

রবিবার । ৬ আষাঢ় ১৪২৮। ২০ জুন ২০২১। ৮ জিলকদ ১৪৪২

সম্পর্কে ফিরতে চায় সৌদি পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তলানিতে চলে যাওয়া সম্পর্কটা আবার আগের অবস্থায় ফেরাতে চায় দীর্ঘদিনের মিত্র পাকিস্তান ও সৌদি আরব। শুধু কথায় নয়, কাজেও সেটা দেখাচ্ছে দুই দেশ। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের চলতি সৌদি আরব সফরে গতকাল শনিবার বেশ কিছু চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

দীর্ঘদিনের মিত্র হলেও বর্তমানে দুই মুসলিমপ্রধান দেশের সম্পর্ক তলানিতে রয়েছে। সর্বশেষ কাশ্মীর ইস্যুতে সৌদি রাজতন্ত্রের নীরব ভূমিকা ও অন্য বেশ কিছু বিষয়কে কেন্দ্র করে এই সম্পর্ক আরো তিক্ত হয়। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ইমরান খানের সফর দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনবে।

২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর ইমরান খান সপ্তমবারের মতো সৌদি আরব সফর করছেন। জেদ্দা বিমানবন্দরে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তাঁকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। পরে দুই দেশের শীর্ষস্থানীয় নেতারা জেদ্দার আল সালাম প্রাসাদে বৈঠক করেন।

এর আগে ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করলে সেই সময় ইমরান সরকারের পররাষ্ট্রমস্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসির বিশেষ বৈঠক ডাকার আহ্বান জানিয়েছিলেন সৌদি আরবের প্রতি। কিন্তু সৌদি রাজতন্ত্র সাড়া দেয়নি। সে সময় মুসলিমপ্রধান দেশগুলোর অভিভাবক খ্যাত সৌদি আরবকে পাশ কাটিয়ে পাকিস্তান নিজেই ওআইসির বৈঠক আয়োজনের চেষ্টা করে, যেটাকে ইতিবাচকভাবে নেয়নি সৌদি প্রশাসন।

পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, ভারতের সঙ্গে তেলনির্ভর বাণিজ্য থাকায় সৌদি আরব কাশ্মীর ইস্যুতে কোনো ভূমিকা রাখতে আগ্রহী নয়। 

সৌদি আরব ও পাকিস্তানের সম্পর্কোন্নয়নের আলোচনাটি এমন সময় সামনে এলো, যখন শোনা যাচ্ছে যে সৌদি আরব আদর্শিক ও আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছে। ২০১৯ সালে ইমরান খান তাঁর তেহরান সফরে ইরান-সৌদি আরব শত্রুতা প্রশমনের চেষ্টা করেছিলেন। সূত্র : এএফপি।