kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

মমতার প্রচারে নিষেধাজ্ঞা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মমতার প্রচারে নিষেধাজ্ঞা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী প্রচারে ২৪ ঘণ্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। কমিশনের নির্দেশনা মতে, গতকাল সোমবার রাত ৮টা থেকে আজ মঙ্গলবার রাত ৮টা পর্যন্ত কোনো রকমের নির্বাচনী প্রচার করতে পারবেন না মুখ্যমন্ত্রী। কমিশন বলেছে, প্ররোচনামূলক বত্তৃদ্ধতার অভিযোগে মমতাকে পাঠানো নোটিশের জবাবে তারা সন্তুষ্ট নয়। সে কারণেই ২৪ ঘণ্টার এই নিষেধাজ্ঞা। মমতা এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, এর প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার তিনি গান্ধী মূর্তির নিচে ধরনায় বসবেন।

তৃণমূল সূত্রে জানা গেছে, আজ বারাসত, বিধাননগর, হরিণঘাটা ও কৃষ্ণগঞ্জে মমতার সভা করার কথা ছিল। শনিবার কোচবিহারের শীতলখুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চারজনের মৃত্যুর পর রবিবার সেখানে যাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন মমতা। সেই ঘোষণার পরই কমিশন ৭২ ঘণ্টার জন্য যেকোনো রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের শীতলখুচিতে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এর পরে দেয় মমতার প্রচারে নিষেধাজ্ঞা। তৃণমূল কংগ্রেস এই নিষেধাজ্ঞার তীব্র সমালোচনা করে বলেছে, বিজেপির নির্দেশে কমিশন এই পদক্ষেপ নিয়েছে। তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ বলেন, ‘মানুষ এর জবাব দেবে। পক্ষপাতদুষ্ট কমিশন বিজেপির শাখা সংগঠন। ভোটের বাক্সে এর জবাব দেবে মানুষ।’ দলের জাতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও’ব্রায়েন বলেন, ‘এটা গণতন্ত্রের পক্ষে কালো দিন।’

কোনো মুখ্যমন্ত্রীর ভোটের প্রচারে নিষেধাজ্ঞার নজির অবশ্য নতুন নয়। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় ৭২ ঘণ্টার জন্য উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের প্রচারে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল। এ ছাড়া বিভিন্ন সময়ে অনেক নেতার প্রচার নিষিদ্ধ করেছে কমিশন।

সম্প্রতি হুগলির তারকেশ্বর ও কোচবিহারের জনসভায় মমতার দেওয়া বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে নোটিশ পাঠিয়েছিল কমিশন। শনিবার সেই নোটিশের জবাব দেন মমতা।

তারকেশ্বরে ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেছিলেন, ‘সংখ্যালঘু ভোট ভাগ হতে দেবেন না। বিজেপি এলে মনে রাখবেন সমূহ বিপদ, সবচেয়ে বেশি আপনাদের।’ এর পরেই কমিশন তাঁকে নোটিশ পাঠিয়ে বলে, ‘জাত, পাত, ধর্মের ভিত্তিতে ভোট চাওয়া নির্বাচনী আচরণবিধির পরিপন্থী।’ আর কোচবিহারে সিআরপিএফকে ঘেরাও করার আহ্বান জানান। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।