kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

গ্রিক রাজপুত্রের জীবনের কিছু চমকপ্রদ তথ্য

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গ্রিক রাজপুত্রের জীবনের কিছু চমকপ্রদ তথ্য

অভ্যুত্থানের মুখে সপরিবারে দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হওয়া, ইংল্যান্ডে আশ্রয় নেওয়া, নৌবাহিনীর ক্যাডেট হিসেবে প্রিন্সেস এলিজাবেথের মন জয় করা—প্রিন্স ফিলিপকে নিয়ে এমন চমকপ্রদ ১০টি তথ্য তুলে ধরা হলো পাঠকের সামনে।

১. প্রিন্স ফিলিপের জন্ম গ্রিসের এক রাজপরিবারে। হেলেনসের রাজা প্রথম জর্জের ছেলে প্রিন্স অ্যান্ড্রু ছিলেন তাঁর বাবা। আর মা ছিলেন ব্যাটেনবার্গের প্রিন্সেস অ্যালিস। ইংল্যান্ডের রাজপরিবারের মাউন্টব্যাটেনরা ছিলেন তাঁর মায়ের দিকের আত্মীয়।

২. জন্ম সনদে প্রিন্স ফিলিপের জন্ম তারিখ লেখা ১৯২১ সালের ২৮ মে। যদিও তিনি জন্মগ্রহণ করেন ১৯২১ সালের ১০ জুন। তৎকালীন গ্রিসে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসরণ করা হতো না বলে এই বিপত্তি।

৩. ১৯২২ সালে গ্রিসে এক অভ্যুত্থানে রাজপরিবার ক্ষমতা হারায়। বিপ্লবীরা তাদের নির্বাসনে পাঠায়। ইংল্যান্ডের রাজা পঞ্চম জর্জ যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়ে পুরো পরিবারকে উদ্ধার করে ফ্রান্সে আনেন।

৪. প্রিন্স ফিলিপের মা পরবর্তী জীবনে সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

৫. প্রিন্স ফিলিপের সঙ্গে প্রিন্সেস এলিজাবেথের প্রথম দেখা হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে। তখন প্রিন্সেস এলিজাবেথের বয়স মাত্র ১৩। রাজা ষষ্ঠ জর্জের ডার্টমুথ কলেজ সফরে সঙ্গে প্রিন্সেস এলিজাবেথ এবং প্রিন্সেস মার্গারেট। দুই প্রিন্সেসের দেখভালের দায়িত্ব প্রিন্স ফিলিপের ওপর। এরপর দুজনের প্রেম আর চিঠি লেনদেন শুরু। সে সময় প্রিন্সেস এলিজাবেথের ড্রেসিং টেবিলে শোভা পেত প্রিন্স ফিলিপের ছবি।

৬. ১৯৪৩ সালে প্রিন্স ফিলিপ আনুষ্ঠানিকভাবে প্রিন্সেস এলিজাবেথকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কিন্তু আপত্তি তুলেছিলেন রাজপরিবারের কেউ কেউ। বাগদানের আগে প্রিন্স ফিলিপকে গ্রিসের নাগরিকত্ব ত্যাগ করে ব্রিটিশ নাগরিকত্ব নিতে হয়েছিল।

৭. এই যুগলের বিয়ে হয় ১৯৪৭ সালের ২০ নভেম্বর। তাঁদের অভিনন্দন জানিয়ে বাকিংহাম প্রাসাদে এসেছিল ১০ হাজারের বেশি টেলিগ্রাম। সারা দুনিয়া থেকে আসে প্রায় আড়াই হাজার উপহার।

৮. প্রিন্স ফিলিপ প্রকৃতি এবং বন্য প্রাণী সংরক্ষণে তাঁর কাজের জন্য পরিচিত। কিন্তু ১৯৬১ সালে ভারত সফরকালে বাঘ শিকার করে সেটার সঙ্গে ছবিও তুলেছিলেন। এ নিয়ে সে সময় তীব্র বিতর্ক হয়েছিল। সূত্র : বিবিসি