kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ

শেষ পর্যন্ত আমরাই হাসব : মমতা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শেষ পর্যন্ত আমরাই হাসব : মমতা

নির্বাচনী প্রচারের শুরুতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, পশ্চিমবঙ্গের নন্দীগ্রাম থেকেই প্রার্থী হচ্ছেন তিনি। সেই কথা রেখে রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের তৃণমূল প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। ২৯৪ আসনের মধ্যে ২৯১টিতে প্রার্থী দিয়েছে তৃণমূল। দার্জিলিং, কার্শিয়াং, কালিম্পং পাহাড়ের তিনটি আসন জোটসঙ্গী গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান তৃণমূল নেত্রী।

সাংবাদিকদের মমতা জানান, ৯ মার্চ নন্দীগ্রাম যাবেন তিনি, সেদিনই দলের নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করা হবে। আর তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেবেন ১০ মার্চ। তিনি বলেন, ‘আজকের দিনটি গুরুত্বপূর্ণ। আমরাই প্রথম রাজনৈতিক দল, যারা আজ সম্পূর্ণ প্রার্থি তালিকা ঘোষণা করছি।’

২৯১ আসনে ঘোষিত প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন ৫০ নারী। এ ছাড়া তফসিলি জাতির ৭৯ জন, তফসিলি উপজাতির ১৭ জন ও মুসলিম সম্প্রদায়ের ৪২ জন রয়েছেন।

এত দিন যে ভবানীপুরে দাঁড়াতেন মমতা, এবার সেখানে প্রার্থী হচ্ছেন রাজ্যের বিদ্যুত্মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। এবারের নির্বাচনে অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ, পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, কীর্তন শিল্পী অদিতি মুন্সি, অভিনেত্রী সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যয়, জুন মাল্যসহ বিনোদনজগতের একাধিক পরিচিত মুখকে প্রার্থী করেছে তৃণমূল।

সিংঘুরে রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের পরিবর্তে প্রার্থী হচ্ছেন বেচারাম মান্না। চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য দাঁড়াবেন দমদম উত্তরে। শারীরিক অসুস্থতার জন্য এবারের নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন না অমিত মিত্র এবং পূর্ণেন্দু বসু। ৮০ বছরের ঊর্ধ্বে যাঁদের বয়স, তাঁদের এবার টিকিট দেওয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন মমতা। একসঙ্গে এত দিন কাজ করেও বয়স ও অসুস্থতার কারণে তৃণমূলের যেসব পরিচিত নেতাকে প্রার্থী করা সম্ভব হলো না, সেই নিয়েও দুঃখপ্রকাশ করে তিনি বলেন, ক্ষমতায় এলে এই দায়িত্ববান ব্যক্তিদের বিধান পরিষদ তৈরির মাধ্যমে ফের গুরুত্বপূর্ণ পদে বহাল করা হবে।

এক ঝাঁক নতুন মুখের অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি বাদ পড়েছেন বেশ কয়েকজন বিধায়ক। তাঁদের মধ্যে পাঁচজন মন্ত্রীও রয়েছেন। তাঁরা হচ্ছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র, কারিগরি শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ এবং উদ্যানপালন দপ্তরের মন্ত্রী আব্দুর রেজ্জাক মোল্লা, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী রত্না ঘোষ কর।

প্রার্থী তালিকা প্রকাশকালে মমতা বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনকে শ্রদ্ধা করি, কিন্তু তাদের কাছে আবেদন, বিজেপির হাতের পুতুল হয়ে যাবেন না।’

২০২১ সালের ২১ সংখ্যাটির ওপর গুরুত্ব দিয়ে মমতা বলেন, ‘২১ আমার লাকি সংখ্যা।’ পশ্চিমবঙ্গের ২৯৪ আসনে ২৯৪ দফায় ভোট করলেও বিজেপি জিততে পারবে না মন্তব্য করে প্রত্যয়ী মমতা বলেন, ‘ফল বেরোনোর পর আমরাই হাসব : মমতা।’ জনগণের ওপর শতভাগ ভরসা রয়েছে উল্লেখ করেন তিনি বলেন, ‘মানুষ জানে, বিজেপি আসা মানে বাংলায় সর্বনাশ ডেকে আনা।’ নির্বাচনে জেতার ব্যাপারে তাঁর ওপর সবাইকে ভরসা রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, শুধু তৃণমূলই পশ্চিমবঙ্গকে নতুন উচ্চতায় নিতে যেতে পারে।

তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা সম্পর্কে পর্যবেক্ষকদের অভিমত, মসনদের লড়াই জিততে সিংহাসনের কঠিন অঙ্কে গ্লামারই তৃণমূলের হাতিয়ার। আর সে জন্য আক্ষরিক অর্থেই তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা তারকাখচিত। ভোটের অঙ্কের সঙ্গে জনপ্রিয়তার বিচারের ফ্যাক্টর জুড়ে যাওয়ায় তালিকায় রাজ চক্রবর্তী, জুন মালিয়া, সায়নি, কাঞ্চন মল্লিকের সঙ্গে স্থান পেয়েছে সদ্য যোগদানকারী অভিনেত্রী সায়ন্তিকা ও গায়িকা অদিতি মুন্সী। তবে গ্লামার গুরুত্ব পেলেও বাদ পড়েছেন অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়ের মতো বিধানসভার সাবেক সদস্য। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া, আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য