kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

খাশোগি হত্যার প্রতিবেদন থেকে তিন নাম ‘হাওয়া’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



খাশোগি হত্যার প্রতিবেদন থেকে তিন নাম ‘হাওয়া’

বিশ্বব্যাপী আলোড়ন তোলা সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ঘষামাজা করা হয়েছে। প্রথম প্রতিবেদনটি সরিয়ে পরে তিনটি নাম বাদ দিয়ে দ্বিতীয় আরেকটি প্রকাশ করা হয়েছে। বিষয়টিকে রহস্যজনক বলা হচ্ছে।

স্থানীয় সময় গত শুক্রবার বিকেলে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন প্রথম খাশোগি হত্যার গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়, এই হত্যার অভিযানে সরাসরি অনুমোদন দিয়েছিলেন সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পরপরই সৌদি আরবের ৭৬ জন নাগরিকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। তবে এই তালিকায় মোহাম্মদ বিন সালমানের নাম নেই। এরপর কোনো রকম ব্যাখ্যা প্রকাশ না করে প্রতিবেদনটি সরিয়ে নেওয়া হয়। এর বদলে প্রতিবেদনটির আরেকটি সংস্করণ প্রকাশ করা হয়।

প্রথম প্রকাশ করা গোয়েন্দা প্রতিবেদনে হত্যাকাণ্ডের সহযোগী হিসেবে যাঁদের নাম ছিল, নতুন সংস্করণে এর মধ্য থেকে তিনজনের নাম খুঁজে পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের ডিরেক্টর অব ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্সের দপ্তর প্রতিবেদনটি তাদের নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশের পর তা বদল করে। তবে প্রতিবেদন বদলের বিষয় নিয়ে ততটা আলোচনা হচ্ছে না। কারণ যুবরাজ বিন সালমানকে শাস্তি দিতে বাইডেন প্রশাসনের ব্যর্থতার দিকটিই এখন চারদিকে ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে।

যে তিনজনের নাম প্রতিবেদন থেকে হাওয়া করে দেওয়া হয়েছে, তাঁদের মধ্যে একজন জেনারেল আবদুল আজিজ বিন মোহাম্মদ আল-হোয়ারিনি। খাশোগি হত্যায় আগে তাঁর নাম আসেনি। তিনি সৌদি আরবের একজন মন্ত্রীর ভাই বলে জানা গেছে। অন্য দুজন হলেন ইয়াসির খালিদ আলসালেম ও ইব্রাহিম আল-সালিম। তাৎক্ষণিকভাবে এই দুজনের পরিচয় জানা যায়নি।

তিনজনের নাম মূল প্রতিবেদনে কেন ছিল, আর তাঁদের ভূমিকা কী ছিল, সে ব্যাপারে ডিরেক্টর অব ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্সের দপ্তর ব্যাখ্যা দিতেও অস্বীকৃতি জানিয়েছে। তবে তাদের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা ওয়েবসাইটে একটি সংশোধিত নথি দিয়েছি। কারণ প্রথম প্রতিবেদনটিতে ভুল করে তিনটি নাম রয়ে গিয়েছিল। এই নামগুলো প্রতিবেদনে থাকা উচিত হয়নি।’ প্রতিবেদনে বদল আনার বিষয়টি নজরে আসার আগে শুক্রবার বাইডেন প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছিলেন, প্রতিবেদনে নতুন কিছু নেই। খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে আগে প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলোতেও অবশ্য এই তিন ব্যক্তির নাম ছিল না।

সৌদির বিষয়ে বাইডেন প্রশাসনের নতুন সিদ্ধান্ত আসতে পারে : এদিকে খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে বাইডেন প্রশাসনের আরো কঠোর হওয়া উচিত ছিল, এমন সমালোচনার মুখে সৌদি আরবের বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত আসার কথা ছিল গতকাল সোমবার।

শনিবার এই বিষয়ে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, ‘সৌদি আরবের সঙ্গে আমরা কী করতে যাচ্ছি, সে বিষয়ে সোমবার একটি ঘোষণা আসবে।’ এ বিষয়ে বিস্তারিত আর কিছু জানাননি তিনি।

যুবরাজকে ‘সাজা’ দেওয়ার আহ্বান বাগদত্তার : সাংবাদিক খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজকে অবিলম্বে সাজা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তাঁর বাগদত্তা হাতিস চেঙ্গিস। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘এটা শুধু ন্যায়বিচারের জন্য নয়, একই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে।’

সূত্র : সিএনএন, রয়টার্স, বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা