kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

মিয়ানমারের দূতের আবেগঘন বক্তব্য

জান্তার অবসানে জাতিসংঘকে কঠোর হওয়ার আহ্বান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জান্তার অবসানে জাতিসংঘকে কঠোর হওয়ার আহ্বান

মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে গতকাল সামরিক অভ্যুত্থানবিরোধী আন্দোলনকারীদের ওপর ব্যাপক ধরপাকড় চলে। ছবি : এএফপি

জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও মোয়ে তুন তাঁর দেশে সামরিক অভ্যুত্থানকারীদের থামানোর জন্য ‘সবচেয়ে কঠোর পদক্ষেপ’ নিতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গত শুক্রবার তাঁর ওই বক্তব্যের পর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর ওপর আন্তর্জাতিক অঙ্গনের চাপ আরো বাড়বে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে ক্ষমতা দখল করে এবং অং সান সু চি ও তাঁর দলের বেশির ভাগ নেতাকে আটক করে। এর প্রতিবাদে মিয়ানমারের বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ মানুষের বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। পশ্চিমা দেশগুলো সামরিক বাহিনীর ক্ষমতা দখলের নিন্দা জানিয়েছে। কয়েকটি দেশ এরই মধ্যে অভ্যুত্থানকারীদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেছে।

গতকাল শনিবারও মিয়ানমারের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ করে জান্তাবিরোধীরা। তাদের বিরুদ্ধে ধরপাকড়ও চলে। দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনে গতকাল আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ রাবার বুলেট ছোড়ে। কমপক্ষে ১৫ জনকে গ্রেপ্তারের তথ্য নিশ্চিত করেছে পুলিশ।

মিয়ানমার দূতের বক্তব্য : গত শুক্রবার মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত মোয়ে তুন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে বলেন, ‘অবিলম্বে সামরিক অভ্যুত্থানের ইতি ঘটানোর জন্য, নিরপরাধ মানুষের ওপর নিপীড়ন বন্ধ করার জন্য, রাষ্ট্রক্ষমতা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য এবং গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনকে যতটা সম্ভব কঠোর পদপেক্ষ নিতে হবে।’ বার্মিজ ভাষায় শেষ কথাগুলো বলে মোয়ে তুন হাতের তিন আঙুল দেখিয়ে অভ্যুত্থানবিরোধিতার প্রতীকে পরিণত হওয়া ‘থ্রি ফিঙ্গার স্যালুট’ দেন। তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের আকাঙ্ক্ষার জয় হতেই হবে।’

জাতিসংঘে মোয়ে তুনের এ বক্তব্যের ব্যাপারে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ওই বক্তব্য দেওয়ার পর তিনি জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের কাছে অপ্রত্যাশিত গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোয় তাঁর ব্যাপক প্রশংসা করা হচ্ছে।

সু চির দেখা মিলছে না : গৃহবন্দি সু চিকে তাঁর নেপিডোর বাড়ি থেকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেতারা। তাঁদের দাবি, সু চিকে তাঁর বাড়ি থেকে অন্য কোথাও নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোথায়, তা তাঁরা জানেন না।

এদিকে?সু চির এক আইনজীবীর অভিযোগ, তাঁকে সু চির সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ জন্য তিনি আগামীকাল সোমবারের শুনানির জন্য ঠিকঠাক প্রস্তুতি নিতে পারছেন না। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স।

মন্তব্য