kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

মিয়ানমার সংকট কাটাতে উদ্যোগ ইন্দোনেশিয়ার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মিয়ানমারের সংকট উত্তরণে কূটনৈতিক উদ্যোগ নিয়েছে আসিয়ান জোটের প্রভাবশালী দেশ ইন্দোনেশিয়া। জাকার্তা বলছে, নেপিডোর রাজনৈতিক সংকট সমাধানে দুই পক্ষের সঙ্গেই আলোচনা করা হবে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি মিয়ানমার সফর করার পরিকল্পনা করছেন।

এদিকে গতকাল থাইল্যান্ড সফরে গেছেন মিয়ানমারের জান্তা সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উন্না মং লুইন। সেখানে ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীও অবস্থান করছেন। অন্যদিকে জান্তা সরকারকে বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা চলছে—এমন আশঙ্কায় গতকাল মিয়ানমারে অবস্থিত ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ড দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছে জান্তাবিরোধীরা।

এর আগে মিয়ানমার সরকারের ফাঁস হওয়া গোপন নথির বরাতে গণমাধ্যমে জানানো হয়, বিদ্যমান সংকট থেকে বেরিয়ে আসার একটি উপায় খুঁজে পেতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্য দেশগুলোকে নিয়ে কূটনৈতিক উদ্যোগ জোরদারের চেষ্টা করছে ইন্দোনেশিয়া। সামরিক বাহিনী যেন সব দলকে নিয়ে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন করে, তা নিশ্চিত করতে অঞ্চলটির দেশগুলোকে পর্যবেক্ষক পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছে জাকার্তা। সার্বিক বিষয় নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার মিয়ানমার সফরের পরিকল্পনা করেছেন ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি। এটি হলে অভ্যুত্থানের পর এই প্রথম উচ্চ পর্যায়ের বিদেশি কোনো দূতের মিয়ানমার সফর হবে।

তবে মারসুদির সফরের পরিকল্পনা জানার পর গতকাল ইয়াঙ্গুনে ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাসের বাইরে কয়েক শ মানুষ জড়ো হয়ে ফের নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিরোধিতা করে। বিক্ষোভকারীদের ভাষ্য, মারসুদির উদ্যোগের ফলে জান্তা সরকারের সঙ্গে কোনো চুক্তি স্বাক্ষরিত হলে তাতে সু চির দলের জয় পাওয়া নভেম্বরের নির্বাচনের গুরুত্ব কমে যেতে পারে।

মিয়ানমারভিত্তিক নাগরিক অধিকার সংগঠন ফিউচার নেশন অ্যালায়েন্স এক বিবৃতিতে জানায়, মারসুদির সফর সামরিক জান্তাকে স্বীকৃতি দেওয়ার সমকক্ষ হবে।

এদিকে ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তেওকু ফাইজাসিয়াহ গতকাল জাকার্তায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি ও অন্য আসিয়ান দেশগুলোর মতামত নেওয়ার পরে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে মিয়ানমার সফরের জন্য এখন উপযুক্ত সময় নয়। মিয়ানমারের সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। মিয়ানমারের সফরের বিষয়টি পরিকল্পনায় আছে, তবে এ বিষয়ে সতর্কতার সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ সূত্র : এএফপি, রয়টার্স, নিক্কেই এশিয়া।

মন্তব্য