kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

আন্তর্জাতিক সংহতিতেই ভরসা দেখছেন গনি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আন্তর্জাতিক সংহতিতেই ভরসা দেখছেন গনি

শান্তিচুক্তি মেনে মে মাসের আগেই আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করা হবে কি না, সে ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়নি বলে ঘোষণা দিয়েছে ন্যাটো। ন্যাটোর এ ঘোষণায় আফগানিস্তানে শান্তিপ্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। বিবিসিকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

আশরাফ গনি বলেন, ন্যাটোর  ঘোষণার ফলে সব পক্ষ এসব বিষয় আবার ভেবে দেখার এবং একটি উপসংহারে পৌঁছানোর সুযোগ পেল। অবশ্য এ উপসংহারে সবাই আগেই পৌঁছেছে যে সেনা ব্যবহার করে আফগানিস্তানের সমস্যা সমাধান সম্ভব নয়। সমাধানের জন্য অবশ্যই রাজনৈতিক ফায়সালার দিকে যেতে হবে। আর ফয়সালা চাইলে কিছু আচরণ যে একেবারেই অগ্রহণযোগ্য, সেই সংকেত অন্য পক্ষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সম্মিলিত প্রচেষ্টার প্রয়োজন।

তালেবানের সঙ্গে শান্তিচুক্তি অনুসারে আগামী মে মাসের আগেই আফগানিস্তান থেকে ন্যাটো জোট ও যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের কথা রয়েছে। ন্যাটো জোটের প্রায় ১০ হাজার সেনা বর্তমানে দেশটিতে অবস্থান করছে, কিন্তু দেশটিতে ক্রমাগত সহিংসতার ঘটনা বেড়ে চলায় এখনই তড়িঘড়ি করে সব সেনা প্রত্যাহার না করার অনুরোধ জানিয়েছে আফগান সরকার। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিষয়টি পর্যালোচনা করে দেখছে। অন্যদিকে ন্যাটোও এখনো সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেনি। যদিও যুক্তরাষ্ট্র না চাইলে ন্যাটোর পক্ষে আফগানিস্তানে সেনা মোতায়েন রাখা কঠিন হয়ে যাবে। 

নতুন মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে নিজের সম্পর্ক এবং আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে আন্তর্জাতিক সংহতির ব্যাপারে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে গনি বলেন, কোনো দুঃখজনক পরিণতি থেকে বাঁচতে আন্তর্জাতিক ওই সংহতির ওপরই তিনি ভরসা করছেন। পরিস্থিতি যা দাঁড়িয়েছে তাতে বিদেশি সেনা সরে গেলে আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে সেনা সরলেও তালেবান ক্ষমতায় যেতে পারবে না বলে মনে করেন তিনি।

গনি এমন সময়ে এসব কথা বললেন যখন আফগান সরকার-তালেবানের মধ্যকার শান্তি আলোচনা থমকে আছে এবং দেশটিতে একের পর এক সহিংস ঘটনা ঘটে চলেছে।

সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা