kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

ইকোনমিস্ট গ্রুপের গবেষণা

২০২৩ সালের আগে টিকা মিলবে না ৮৫ দেশে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



২০২৩ সালের আগে টিকা মিলবে না ৮৫ দেশে

বিশ্বের ৮৫টির বেশি গরিব দেশে ২০২৩ সালের আগে গণহারে কভিড-১৯-এর টিকা কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে না। আর ব্যাপক জনসংখ্যার কারণে চীন ও ভারতে টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন হবে ২০২২ সালের শেষ দিকে। এক গবেষণার ভিত্তিতে গতকাল বুধবার এই আভাস দিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান ‘ইকোনমিস্ট গ্রুপ’।

এদিকে যুক্তরাজ্যে কভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৬ লাখ ৯০ হাজারের বেশি। অন্যদিকে গ্রীষ্মের মধ্যে সব মার্কিনের জন্য টিকা নিশ্চিত করতে চান যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এ জন্য নতুন করে আরো ২০ কোটি টিকা কেনার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। ৩৩ কোটি জনসংখ্যার জন্য এ নিয়ে ৬০ কোটি টিকা কেনার ঘোষণা দিল মার্কিন সরকার। যদিও সেখানে শিশুদের টিকা দেওয়া হবে না।  

‘ইকোনমিস্ট গ্রুপ’-এর ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, গরিব রাষ্ট্রগুলোতে টিকা সরবরাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) গৃহীত ‘কোভ্যাক্স’ প্রকল্প গতি পেতে সময় লাগবে। কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো টিকা সরবরাহে ধনী রাষ্ট্রগুলোকে প্রাধান্য দিচ্ছে।

গবেষণাটি করেছে ‘ইকোনমিস্ট গ্রুপ’-এর গবেষণা সেল ‘ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট’। এই সেলের পরিচালক আগাথে ডিমারেইস বলেন, ‘২০২৩ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির আগে বেশির  ভাগ গরিব রাষ্ট্র অবাধে টিকা নেওয়ার সুযোগ পাবে না। এমনকি করোনা গণহারে ছড়িয়ে পড়লে কিংবা টিকার খরচ বেশি পড়লে অনেক গরিব দেশ টিকা কার্যক্রমে আগ্রহই হারিয়ে ফেলতে পারে।’

বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বের ২১৯টি দেশ ও অঞ্চলে শনাক্ত কভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ১০ কোটি ১০ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ২১ লাখ ৭০ হাজারের বেশি। সেরে ওঠার সংখ্যাও কম নয়—সাত কোটি ২৯ লাখের বেশি। চিকিৎসাধীন আছে প্রায় দুই কোটি ৫৭ লাখ মানুষ। এর মধ্যে মৃদু উপসর্গ রয়েছে দুই কোটি ৫৬ লাখ মানুষের (৯৯.৬ শতাংশ)। বাকিদের (দশমিক ৪ শতাংশ) অবস্থা আশঙ্কাজনক। বিশ্বে প্রতি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১২ হাজার ১৩ জন। আক্রান্তের তুলনায় মৃত্যুর হার ৩ শতাংশ। সূত্র : রয়টার্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা